ফিক্সিং ও জুয়ার অভিযোগে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ নিষিদ্ধ

দিন প্রতিদিন ডেস্ক:

চলতি প্রিমিয়ার লিগে লাইভ বেটিং, ম্যাচ ফিক্সিং, ম্যাচ ম্যানিপুলেশন ও অলনাইন জুয়া আয়োজনের অভিযোগে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘকে দুই মৌসুমের জন্য নিষিদ্ধ করেছে বাফুফের ডিসিপ্লিনারি কমিটি। চলতি লিগের টেবিলের তলানিতে থেকে আগেই অবনমিত হয়ে গেছে আরামবাগ। তাদের অবনতির কফিনে এবার যেন শেষ পেরেক পড়ল।

আরামবাগের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রেক্ষিতে এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন (এএফসি) অধিকতর তদন্তের নির্দেশনা দিয়েছিল বাফুফেকে। তদন্ত শেষে আজ রবিবার এক বিবৃতিতে আরামবাগের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে সুস্পষ্ট প্রমাণ পাওয়ার কথা জানায় বাফুফের ডিসিপ্লিনারি কমিটি। একই সঙ্গে ক্লাবটিকে ৫ লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। এ ছাড়া ব্যক্তিপর্যায়েও শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

ক্লাবের সাবেক সভাপতি মিনহাজুল ইসলাম মিনহাজ, সাবেক টিম ম্যানেজার গওহর জাহাঙ্গীর, ভারতীয় ট্রেনার মাইদুল ইসলাম ও সহকারী ম্যানেজার আরিফ হোসেনকে ফুটবল সংশ্লিষ্ট সকল কর্মকাণ্ড থেকে আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ভারতীয় ফিজিও সঞ্চয় বোস ও এজেন্ট আজিজুল শেখ ১০ বছর নিষিদ্ধ হয়েছেন। গোলরক্ষক আপেল মাহমুদ ৫ বছর, আবুল কাশেম, আল আমিন, মোহাম্মদ রকি, জাহিদ হোসেন, রাহাদ মিয়া, মোস্তাফিজুর রহমান সৈকত, শামীম রেজাকে তিন বছর নিষিদ্ধ হয়েছেন।

দলটির খেলোয়াড় ওমর ফারুক, রাকিবুল ইসলাম, মেহেদী হাসান ফাহাদ ও মিরাজ মোল্লাকে ২ বছরের জন্য ফুটবল সংশ্লিষ্ট সকল কার্যকলাপ থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। প্রিমিয়ার লিগ থেকে অবনমনের পর বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগের পরের আসরে খেলে শীর্ষ লিগে ফেরার সুযোগ ছিল আরামবাগের। কিন্তু ২০১৯ সালে ক্যাসিনো কাণ্ডে আলোচনায় আসা আরামবাগ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগেও খেলার সুযোগ পাবে না।

মন্তব্য

মন্তব্য