ফরিদগন্জ সদরস্থ্য জনতা ব্যাকের সহকারী ম্যানেজারের খুটির জোর কোথায়?

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি : ফরিদগন্জ সদরস্থ্য জনতা ব্যাকের সহকারী ম্যানেজারের খুটির জোর কোথায়? ফরিদগন্জ উপজেলা প্রতিনিধিঃ ফরিদগন্জ উপজেলা সদরের জনতা ব্যাংকের শিক্ষক হয়রানীর অভিযোগ দীর্ধদিনের হলেও বর্তমান ম্যানেজার যোগদানের পর তার ঐকান্তীক প্রচেষ্টায় অনেকটাই এখন হয়রানী কমলেও সহকারী ময়ানেজার সুকৌশলে চালীয়ে যাচ্ছে ঘুষ বানিজ্য।

কোন শিক্ষক লোনের জন্য ওনার সাথে আলাপ করলে বলে এজপার রুলে গেলে আপনার কাংখিত পরিমান লোন পাবেন না আর পেতে ১ মাসের অধীক সময় লাগতে পারে। আর আমার কথা শুনলে সর্বোচ্চ পরিমান লোন পাবেন এবং ২৪ ঘন্টার মধ্যে পেয়ে যাবেন। ওনার কথা শুনা মানি হচ্ছে ২৫০/৩৫০০ টাকা পর্যন্ত ওনাকে অগ্রিম পরিশোধ করলে ম্যানেজারের সাথে কোনো রকম আলাপ ছারাই আপনাকে ডেকে নিয়ে লোন পাইয়ে দেয়। ওনার হাফভাব ওনি অনেক ক্ষমতাধর এমনটিই কথায় ও কাজের ধরনে বুঝিয়ে থাকেন।

ম্যানেজার সাহেব অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন গ্রাহক তথা শিক্ষকদের সর্বোচ্ছ সেবা দিতে আর সহকারী ম্যানেজারের হীন কৃতকর্মের জন্য সকল অর্জন প্রশ্নবিদ্ধ এবং বেসরকারি শিক্ষকদের ও হয়রানী পিছু ছারছে না। যথাযথ কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ একান্ত প্রয়োজন বলে সচেতন মহল মনে করেন।

মন্তব্য

মন্তব্য