যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা যেন পথচারীদের মৃত্যুর ফাঁদ

মোঃ আওলাদ হোসেন,স্টাফ রিপোর্টার:
ঢাকায় প্রবেশের গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রবেশদ্বার যাত্রাবাড়ি চৌরাস্তা। বাণিজ্যিক নগরী চট্টগ্রামসহ দেশের পূর্ব দক্ষিণ ও উত্তরাঞ্চলসহ প্রায় ৪০ টি জেলা থেকে প্রতিনিয়ত সহস্রাধিক যানবাহনসহ লাখ লাখ যাত্রীরা প্রবেশ করছে রাজধানীর এ সিংহদ্বার দিয়ে। কিন্তু বড়ই পরিতাপের বিষয় রাজধানী যাত্রাবাড়ীর চৌরাস্তা যেন পথচারীদের মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা, ঝড়ছে অসংখ্য প্রাণ, আহত ও পঙ্গুত্ব বরণ করছে অনেকেই। সীমাহীন দুর্ভোগ দিনযাপণ করছে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। যাত্রাবাড়ি ফ্লাইওভার খ্যাত সুনাম থাকলেও এর থেকে সুবিধাবঞ্চিত যাত্রাবাড়িবাসি। এ বঞ্চনাই শেষ নয়, যাত্রাবাড়ীতে উড়ালসেতু তৈরির আগে পথচারী সেতু দিয়ে লোকজন অনায়াসে নিরাপদে রাস্তা পারাপার হতে পারতো। রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ এ উড়াল সেতু নির্মাণের সাথে সাথে যাত্রাবাড়ি চৌরাস্তা থেকে হারিয়ে যায় পথচারী পারাপারে অন্যতম ব্যস্ততম একটি ফুটওভার ব্রিজ। নেই জেব্রাক্রসিংও। তা না থাকায় প্রতিনিয়ত মৃত্যুঝুঁকি মাথায় নিয়ে মানুষকে রাস্তা পার হতে হচ্ছে নিত্যদিন।
গত ১৮ ই ফেব্রুয়ারী এনটিভির সিনিয়র নিউজরুম এডিটর আবুল কালাম শাকিল গোলচত্বর থেকে সিগনালের সময় রাস্তা পার হতে গিয়ে বেপোরোয়া বাসের ধাক্কায় গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তিনি বলেন, আমি সবসময় ফুটওভার ব্রীজ দিয়ে রাস্তা পারাপার হই। এখানে ফুটওভার ব্রীজ বা বিকল্প ব্যবস্থা থাকলে হয়েতো আমার এ দূর্ঘটনা নাও ঘটতে পারতো। চৌরাস্তা থেকে মাত্র ৫০ গজ পূর্বে ঢাকা ডেমরা সড়কে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে দৃষ্টিনন্দন ফুটওভার ব্রীজ তৈরী করা হচ্ছে। কিন্তু দেখা যায় এই ফুটওভার ব্রীজটি দিয়ে শ খানেক লোক চলাচল করে কি না সন্দেহ। যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তার গোলচত্বর আগে উন্মুক্ত ছিল। লক্ষ লক্ষ লোকজন গোলচত্বরে দাঁড়িয়ে নিরাপদে রাস্তা পার হতো। কিন্তু এখন এই গোলচত্বরে নার্সারী করা হয়েছে। গোলচত্বরে দাঁড়ানোর ব্যবস্থা না থাকায় গোলচত্বরের পাশ দিয়ে মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়েই রাস্তা পার হচ্ছে, বিশেষ করে বয়স্ক নারী ও শিশুদের লোকদের চলাচলে খুবই অসুবিধা হচ্ছে। যানবাহন নিয়ন্ত্রনে দায়িত্বশীল বাহিনীর লোকজন যেন উদাসীন দর্শকের দায়িত্ব পালনে খুব ব্যস্ত। চৌরাস্তার দক্ষিণপার্শ্বে বিভিন্ন ভ্রাম্যমাণ দোকান গোলচত্বরের পশ্চিমদিকের রাস্তার উত্তর পার্শে¦ অবৈধ ফলের মার্কেট ও টেম্পু স্ট্যান্ড , ঐসব ভ্রাম্যমাণ মার্কেট ও দোকানের জন্য সবসময় যানজট লেগেই থাকে, এতে মানুষের রাস্তা পরাপারের অসুবিধা হয়।
বর্তমান পরিস্থিতিতে জনমানুষের আকাক্সক্ষায় ও সাময়িক সমাধানকল্পে এখানে জেব্রাক্রসিং দিয়ে আপাত ট্রাফিক সিগনালকে বাস্তবমূখী করে পথচারী পারাপারে যুগোপযোগী করবে। সুদূরপ্রসারী চিন্তাকে বাস্তবায়ন করতে হলে এখানে প্রয়োজন আন্ডারপাস। মুক্তিপাবে দুর্ঘটনা, বাঁচবে প্রাণ।

মন্তব্য

মন্তব্য