৭ই মার্চ রিপন,সাঈদের পুষ্পস্তবক অর্পণ

ইমন খাঁনঃ

বিএন‌পি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিলীন করে দেয়ার জন্য দীর্ঘদিন চেষ্টা করেছিল কিন্তু সফল হতে পারেনি বলে মন্তব‌্য ক‌রে‌ছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাধারণ সম্পাদক তারিক সাঈদ।
তি‌নি ব‌লেন, আবার, ঐতিহাসিক দিবসগুলো যে তাৎপর্য বহন করে, তা যে জাতির অন্তরে স্থাপিত, সেই বিষয়টি তারা বিলম্বে হলেও বুঝতে পেরেছে, অনুধাবন করতে পেরেছে। তাই, আন্দোলনের ডাক দেয়া তাদের কুটকৌশল মাত্র। এই ডাক তাদের নেতাকর্মীদেরকে উৎসাহিত করে রাখা বা সংগঠনের প্রতি আকর্ষণীয় করে রাখার একটি কূটকৌশল মাত্র।

রবিবার (৭ মার্চ) ধানমন্ডির-৩২ নম্বর সড়কের বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্ন উ‌ত্তরে এ কথা বলেন তি‌নি।

সাঈদ বলেন, আজকের এই ৭ই মার্চ জাতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যপূর্ণ। এই ৭ই মার্চ বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি নিরস্ত্র জাতিকে, শান্তিপ্রিয় বাঙালি জাতিকে সশস্ত্র যুদ্ধের আহ্বান করেছিলেন, স্বাধীনতার আহ্বান করেছিলেন। এই ৭ই মার্চের ফলশ্রুতিতে ২৬শে মার্চের স্বাধীনতা দিবস এবং ১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবসের মাধ্যমে আমরা আমাদের কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা অর্জন করেছি।

এবার ৭ই মার্চ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী জাতীয়ভাবে উদযাপন করা হচ্ছে জানিয়ে সাঈদ বলেন, আজ জাতি স্বাধীনতার ৫০ বছর পালন করছি এবং স্বাধীনতার সুফল ভোগ করছি। আজকের এই দিনে আমি বিনম্র শ্রদ্ধায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধা নিবেদন করছি এবং সকল মুক্তিযোদ্ধা ও জাতীয় নেতৃবৃন্দ, যারা মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমাদেরকে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন, আমি তাদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।
বিএনপি ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালন করছে, তা কিভাবে দেখছেন- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি কামরুল হাসান রিপন বলেন-আমি তাদেরকে সাধুবাদ জানাই। বিলম্বে হলেও তারা অনুধাবন করতে পেরেছে যে, ঐতিহাসিক দিবসগুলো জাতির সাথে অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত এবং তা সঠিকভাবে পালনের মাধ্যমেই আমরা নতুন প্রজন্মকে সঠিক ইতিহাস জানাতে পারি।

বিএনপি একদিকে সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করছে আবার অন্যদিকে আন্দোলনের ডাক দিয়েছে, তা কিভাবে দেখছেন- এমন প্রশ্নে রিপন বলেন, তারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিলীন করে দেয়ার জন্য দীর্ঘদিন চেষ্টা করেছিল কিন্তু সফল হতে পারেনি। আবার, ঐতিহাসিক দিবসগুলো যে তাৎপর্য বহন করে, তা যে জাতির অন্তরে স্থাপিত, সেই বিষয়টি তারা বিলম্বে হলেও বুঝতে পেরেছে, অনুধাবন করতে পেরেছে। তাই, আন্দোলনের ডাক দেওয়া তাদের কুটকৌশল মাত্র। এই ডাক তাদের নেতাকর্মীদেরকে উৎসাহিত করে রাখা বা সংগঠনের প্রতি আকর্ষণীয় করে রাখার একটি কূটকৌশল মাত্র।
এসময় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্চাসেবক লীগ এর সর্ব স্থরের নেতা কর্মীদের সরব উপস্তিতি লক্ষ করা যায়।

মন্তব্য

মন্তব্য