গলাচিপায় আউয়াল বাহিনী কর্তৃক নারীদের উপরে অমানুষিক অত্যাচার আটক ১

মোঃ তুহিন শরীফ, পটুয়াখালী থেকে : গলাচিপায় আউয়াল বাহিনী কর্তৃক নারীদের উপরে অমানুষিক অত্যাচার আটক ১। পটুয়াখালী গলাচিপার বকুলবাড়িয়া ইউনিয়নের পাতাবুনিয়া ৭ নং ওয়ার্ডে ভূমিদস্যু বাহিনীর প্রধান আউয়াল ও তার বাহিনী জনসম্মুখে নারীদের উপরে অমানুষিক অত্যাচার চালিয়ে ৬ নারী ও ১ কিশোরকে গুরুতর আহত করে। এদের মধ্যে তিনজন নারীর জীবন আশংকা জনক।

ঘটনাটি ঘটেছে গত (৩’রা-ডিসেম্বর-২০ ইং) তারিখ বিকেল আনুমানিক ৪ ঘটিকার সময় স্থানীয় পাতাবুনিয়া বাজারে।হামলাকারীরা হলেন, আউয়াল খাঁন, শাহজাহান খাঁন, আনোয়ার খাঁন,উভয় পিতাঃ নুর মোহাম্মদ খাঁন, সোহেল খাঁন, কুতুব খাঁন, উভয় পিতাঃ কায়েদ আজম খাঁন, রেফাবুল সরদার (৪০), পিতাঃ ছালাম সরদার, সহ অজ্ঞাত আরো ২০-২৫ জন সন্ত্রাসী এ হামলা চালায়।

হামলায় আহতরা হলেন , লিজা মনি (১৭), হালিমা বেগম (৭০), হাচিনা (৪৫), শিউলি (৪০), আমেনা (৩৫), মরিয়ম (৩০), ও সজিব (১৫), আহত নারীরা বর্তমানে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালে মুমূর্ষু অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছে।
কর্মরত চিকিৎসক জানান, আহত সবাইকে পিটিয়ে যখম করার আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলাফুলা জখম রয়েছে। এদের মধ্যে তিনজন নারীর অবস্থা গুরুতর বলে জানান।

এ ব্যাপারে আহত হাচিনা বেগম বাদী হয়ে গলাচিপা থানায় ঘটনার দিন হামলাকারীদের আট জনের বিরুদ্ধে লিখিত এজাহার দায়ের করেন এবং ০৫/১২/২০ ইং তারিখ মামলাটি রুজু করা হয়।যাহার মামলা নং-(০৬),ধারাঃ ১৪৩/৪৪৭/৩২৩/৩২৫/৩২৬/৩০৭/৩৫৪/৩৭৯/৫০৫ এর পেনাল কোডে মামলাটি রুজু করা হয়েছে।মামলার ১ নং আসামি ভূমিদস্যু বাহিনীর প্রধান আউয়ালকে আটক করা হয়েছে।

এবিষয়ে আহত হাচিনা বেগম বলেন, আমরা গরীব বাবার রেখে যাওয়া ৫ বোন ও মা খুবই কষ্ট চায়ের দোকান করে জীবিকা নির্বাহ করি।আমাদের দুই বোনের স্বামী নেই। এমন অবস্থায় বাবার রেখে যাওয়া কিছু সম্পতিতে একটি দোকান ঘর তৈরি করে বৃদ্ধ মাকে নিয়ে জীবন জাপন করি।ভূমিদস্যু আউয়াল ও তার বাহিনীরা জনসম্মুখে দেশীয় অস্ত্র রামদা, বাংলা দাও, লোহার রড, হকিস্টিক ও লাঠি নিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে আমাদের ৪ বোন বৃদ্ধ মা ও ভাগিনা ভাগনিকে পিটিয়ে আহত করে এবং একটি দোকান ঘর ভেঙে নিয়ে যায়। বর্তমানে জীবিকার পথও বন্ধ আমরা কিভাবে বাঁচবো বলে মিডিয়ার সামনে কেঁদে ফেলেন।

এছাড়াও আহত বৃদ্ধ হালিমা বেগম বলেন, আমার স্বামীর মৃত্যুর পরে মেয়েদের নিয়ে খুবই কষ্ট করে বেঁচে আছি।ভূমিদস্যুরা জমি দখল নেয়ার জন্য আমাকে ও আমার মেয়েদের মেরে ফেলতে এই হামলা চালায়। তিনি অশ্রুভরা চোখে কেঁদে কেঁদে বলেন, মিডিয়ার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন জানাই, দ্রুত হামলাকারীদের গ্রেফতার করে আইনের মাধ্যমে শাস্তি দেয়ার অনুরোধ রাখেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, বহুদিন ধরে অসহায় নারীদের জমি জোর পুর্বক দখল করার চেষ্টা চালিয়ে আসছে ভূমিদস্যু আউয়াল।বিভিন্ন ভয়তীতি দেখিয়ে ব্যার্থ হয়ে এমন বর্বরতা হামলায়। নাম না প্রকাশ এলাকার অনেকে বলেন, এরা বকুলবাড়িয়া ইউনিয়নে দীর্ঘদিন ধরে জমি দখল, চাঁদাবাজি, সুদের সহ বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত রয়েছে বলে জানান।

এবিষয়ে বকুলবাড়িয়া ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আবু জাফর খাঁন বলেন, ঘটনার সময় আমি উপস্থিত ছিলাম না। খবর শুনে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কাউকে পাইনি। দু’পক্ষই মারামারি করেছে। আহতরা পটুয়াখালী হসপিটালে ভর্তি রয়েছে শুনেছি।

এ বিষয়ে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুল ইসলাম বলেন, থানায় এজাহার দায়ের করা হলে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এজাহারটি আমলে নিয়ে মামলা রুজু করা হয়। এবং এক নং আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান।

মন্তব্য

মন্তব্য