লবন নিয়ে গুজব ছড়ানোর দায়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১১ জনকে জরিমানা

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধিঃলবন নিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভোক্তা অধিকার আইনে ক্রেতা ও বিক্রেতাসহ ১১ জনকে ৪১ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। মঙ্গলবার বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শহরের পুরাতন এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালায়।
এসময় বিক্রেতা নজরুল ইসলামকে ১০ হাজার, মোঃ ফারুক আহম্মেদকে ৩ হাজার, মতিউর রহমান বাবুকে ৩ হাজার, শ্যামল কুমার দাসকে ১ হাজার, শফিকুল ইসলামকে ৩ হাজার, আনারুল হককে ৩ হাজার, শাহ আলমকে ১ হাজার, আব্দুল কাদেরকে ২ হাজার, আব্দুল হাকিমকে ৩ হাজার, মোঃ কলিকে ১০ হাজার ও আব্দুর রহমানকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জিয়াউর রহমান পিপিএম জানান, পুলিশ সুপার টি.এম মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম এর নির্দেশনায় এলাকার বাজার ও লবনের দোকানে পুলিশ সর্বক্ষণ মনিটরিং করছে। সাধারণ ক্রেতাদের সচেতন ও লবনের অতিরিক্ত মূল্য না নিতে শহরে মাইকিং করা হচ্ছে।
লবন নিয়ে গুজবে কান না দিতে বা কেউ বেশি দামে লবন বিক্রি করলে ভোক্তা সাধারণকে অভিযোগ করতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, রুম নং-৩২১, জেলা প্রশাসকের কার্যালয় অথবা ০১৩১৮-৩৯৬৯৬৪ নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।
ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক ও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আলমগীর হোসেন জানান, দেশে লবনের কোন সংকট নেই। এছাড়া জেলাতেও পর্যাপ্ত পরিমাণ লবণ রয়েছে। যারা গুজব ছড়াচ্ছে, তাদেরকে সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে। তিনি আরো বলেন, গুজবে কান না দেয়ার জন্য প্রশাসন, পৌরসভা ও চেম্বারের পক্ষ থেকে মাইকিং করে প্রচারণা চালানো হয়। ক্রেতাদের প্রয়োজনের বেশি লবন না কিনতেও আহবান জানান তিনি।
এদিকে, সদর উপজেলার ইংলিশ মোড় ও গোলাপের হাটে হঠাৎ করে খোলা লবনের দাম পনেরো টাকা থেকে বিশ টাকা হয়েছে। হঠাৎ করে দাম বাড়ার কারণে এই এলাকার মানুষ হতাশ। সাধারণ মানুষের মনে শংকা, পেঁয়াজের মত লবনের দাম বাড়লে গরিব মানুষেরা কিভাবে কিনবে।

মন্তব্য

মন্তব্য