কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত দুই বাংলাদেশীর মরাদেহ বেনাপোল দিয়ে হস্তান্তর

 

মোঃ জসীম উদ্দীন,বেনাপোল প্রতিনিধিঃ

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত দুই বাংলাদেশির মরাদেহ অাজ রবিবার(১৮ই আগস্ট) সকালে বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশ বেনাপোল চেকপোষ্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে। নিহতরা হলেন- ঝিনাইদহ জেলার ভাটিয়ারী গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে কাজি মহম্মদ মইনুল আলম (৩৬) ও কুষ্টিয়া জেলার খোকসা উপজেলার চান্দু গ্রামের অামিরুল ইসলামের মেয়ে ঢাকার মোহম্মাদপুরের বাসিন্দা ফারহানা ইসলাম তানিয়া (৩০)।

উল্লেখ্য শুক্রবার দিবাগত মধ্যরাতে কলকাতার শেক্সপিয়র সরণি এবং লাউডন স্ট্রিটের সংযোগস্থলে একটি জাগুয়ার গাড়ি একটি মার্সিডিজকে ধাক্কা দিলে জাগুয়ারটি রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা দুই পথচারীকে চাপা দেয়।পরে পুলিশ এসে গুরুতর আহত ওই দুইজনকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাদের মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন মার্সিডিজের চালক ও আরোহী। ঘটনার পরই গাড়ি ফেলে পালিয়ে যায় জাগুয়ারের চালক। জাগুয়ার ও তার চালক কে আটক করেছে পুলিশ।

নিহতদের পরিবার সুত্রে জানা যায় ফারহানা ইসলাম ঢাকায় সিটি ব্যাংকে ও মঈনুল ইসলাম ঢাকায় গ্রামীন ফোনে চাকুরী করতেন। তারা জানায় গত ১৫ দিন আগে তারা ভারতে চিকিৎসার উদ্দেশ্য গিয়েছিল। ভারতে তাদের সাথে যাওয়া কাজি সাফি রহমত উল্লাহ জানান, আমরা তিনজনই দাঁড়িয়ে ছিলাম শেক্সপিয়র স্মরনি রোডে । এমন সময় আকস্মিক জাগুয়ার নামে একটি বাস সজোরে পাশের রাস্তায় উঠে পড়ে ফারহানা ও মঈনুলকে চাপা দেয়। পরে তাদের হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন।

নিহত ফারহানার লাশ বেনাপোল চেকপোষ্টে গ্রহন করেন তার চাচাতো ভাই আবু ওবাইদা সাফিন ও মঈনুল আলমের লাশ গ্রহন করেন তার চাচাতো ভাই জিয়াদ আলী।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি তদন্ত বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন ভারত থেকে নিহত দুই বাংলাদেশীর লাশ ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে

মন্তব্য

মন্তব্য