ভুল চিকিৎসায় মৃত্যু ডাঃ এর বিরুদ্ধে মামলা ধামাচাপায় ব্যার্থ

> পটুয়াখালি গলাচিপা উপজেলা গলাচিপা ইউনিয়ন ৫নং ওয়র্ডে ভুল চিকিৎসায় মৃত্যু হয় নুর ছালাম মোল্লা (৬৫) এর। মৃত্যু সূত্রে জানাযায় গত ১৭/১১/২০১৮ইং তারিখে সামান্য জ্বর নিয়ে নুর ছালাম মোল্লা তার ভাইকে সাথে নিয়ে গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাঃ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ এর স্বরনাপন হন। ডাঃ তার পছন্দের ল্যাবরেটরি হিমু ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কফ পরীক্ষার নির্দেশ দেন। কফ পরীক্ষায় যক্ষা রোগ হয়েছে বলে উক্ত ল্যাবরেটরি ডকুমেন্ট দেয়। সে মতে ডাঃ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ দীর্ঘ মেয়াদি যক্ষা রোগের ঔষধ সেবনের ব্যবস্তাপত্র দেয়। প্রায় এক মাস ঔষধ সেবন কালিন নুর ছালাম মোল্লা সুস্থের সুত্রপাত না হয়ে ধিরে ধিরে কঙ্কাল এবং ভারসাম্যহীন হয়ে আরও অসুস্থ হয়ে পড়েন, পরিবারের লোকজন এসব দেখে বার বার ডাক্তারকে ফোন করে বিষয় বস্তু জানায় এবং ডাঃ উক্ত ঔষধ নিয়মিত সেবনের জন্য আবারও বলেন। রোগির ছোট ভাই তার শারিরীক অবস্থা খারাপ দেখে দ্বিতীয় বার ডাঃ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ এর কাছে নিয়ে যায় এবং বিস্তারিত বলেন এমতাবস্থায় ডাঃ রোগিটি না দেখে রোগির ভাইর সাথে দুর্ব্যবহার করে এবং এখানে ঝামেলা না করে যে ঔষধ সেবন করতে বলছি সেই ঔষধ চলবে না হয় ঢাকায় নিয়ে যাও। উল্লেখ থাকে যে রোগি নুর ছালাম মোল্লা নিতান্তই গরীব কৃষক মানুস, তাই বিনা মূল্যে গলাচিপা যক্ষা নিয়ন্ত্রণ কর্মসুচি ব্র্যাক থেকে যক্ষার ঔষধ গ্রহন করেন। দ্বিতীয় বার আবার ডাঃ এর নির্দেশনামোতাবেক প্রায় দুই মাস ঔষদ সেবন করেন, এসময় আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে টাকা পয়সার উপায়ন্ত না থাকায় বাড়ির গাছ এবং স্বল্প সম্ভল সাত শতাংশ জমি বিক্রি করিয়া পটুয়াখালী টি বি কনসালটেন্ট ডাঃ রেজাউর রহমান এর চিকিৎসা নিতে যান। তিনি বিভিন্ন উন্নত পরীক্ষা নিরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়ে যানান যে নুর ছালাম মোল্লার কখনও যক্ষা হয়নি এখনও নেই এবং পনেরো দিন পর আবার ও রোগি নিয়ে আসবেন, সে মতে আবার ডাঃ রেজা উর রহমানের কাছে গেলে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করে বলেন ডাঃ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ রোগি নুর ছালাম মোল্লার ভুল চিকিৎসা করে প্রায় মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে এনেছেন। এব্যাপারে নুর ছালাম মোল্লার ভাই নুর আমিন মোল্লা বাদি হয়ে গলাচিপা সিনিয়র জুডিশিয়াল মেজিস্ট্রেট আদালতে ডাঃ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ ১নং ও হিমু ডায়াগনস্টিক এর মালিক হেমায়েত উদ্দিন হিমুকে ২নং আসামি করে একটি মামলা দায়ের করা হয়,মামলা নং Cr- ৮৫/১৯ এবং স্বারক নং ১৭৪-৪/২/১৯। এ ব্যাপারে গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর T H O ডাঃ মনিরউজ্জান বলেন ডাঃ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ এর আচারনগত দিক ভাল নয় এবং তাকে নিয়ে বিভিন্ন সময় শালিশ দরবার হয়েছে। নিয়তির কি নির্মম পরিহাস আর ডাঃ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ এর অবহেলা ও অমানবিক আচারন এবং সুচিকিৎসাবিহীন নুর ছালাম মোল্লা ৮/২/২০১৯ রোজ শুক্রবার বিকেল ২টায় মৃত্যু বরন করেন।উক্ত ৪ সদস্য বিশিষ্ট পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারি ব্যাক্তিটি আর নেই। নুর ছালাম মোল্লার স্ত্রী রাবেয়া বেগম বলেন তার সবচেয়ে বড় আশা ছিল তার দুই নাতিকে উচ্চ শিক্ষিত করার। বর্তমানে তার দুই নাতি একজন বরিশাল সরকারি পলিটেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট ইলোক্ট্রো মেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ফাইনাল সেমিস্টারে, আরেকজন নারায়ণগঞ্জ টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এর ফাইনাল বর্ষের ছাত্র, এই বাসনা বুকে রেখে দিনরাত পরিশ্রম করতেন তিনি।পূরণ হলোনা তার বাসনা অকালেই সমাপ্ত হবে টাকার অভাবে তার দুই নাতির লেখাপড়া। তাতক্ষনিক ডাঃ পক্ষ কালক্ষেপন না করিয়া অতি নতজানু স্বীকার করিয়া মৃত্যু ব্যক্তির পরিবার বর্গকে ডাকিয়া বিভিন্ন প্রলোভন দেখাইয়া ভয়ভীতি প্রস্বমন করিয়া ব্যাপারটি ধামাচাপা দেওয়ার চেস্টা করেন। পরবর্তীতে আবার মামলার প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য

মন্তব্য