জামায়াত থেকে পদত্যাগে বিবেকের কাছে কিছুটা মুক্তি পেয়েছে রাজ্জাক: আওয়ামী লীগ

অনলাইন ডেস্ক: জামায়াতে ইসলামী থেকে পদত্যাগ করেছেন দলটির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক। এ বিষয়ে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ বলেছে, জামায়াতে ইসলামীর মতো যুদ্ধাপরাধী দল দেশে থাকা উচিত নয়। জামায়াতের মধ্যে যাদের ন্যূনতম বিবেকবোধ রয়েছে, তারা এই দলটির সঙ্গে থাকতে পারে না। তাদের থাকাও উচিত নয়। তবে দলটি থেকে পদত্যাগ করে বিবেকের কাছে কিছুটা হলেও মুক্তি পেয়েছে ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক।

শুক্রবার জামায়াতে ইসলামীর আমির মকবুল আহমদকে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ব্যারিস্টার রাজ্জাকের বড় ছেলে ব্যারিস্টার এহসান এ সিদ্দিকী। তিনি যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে শীর্ষ জামায়াত নেতাদের আইনজীবী দলের নেতৃত্বে ছিলেন।

আওয়ামী লীগ নেতারা মনে করেন, জামায়াতে ইসলামী ১৯৭১ সালে স্বাধীকার আন্দোলনে রাজনৈতিকভাবে পাকিস্তানের পাশে ছিলো। মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে তারা পাকিস্তানি সরকারের সঙ্গে হাত মিলিয়ে গণহত্যা ও নারী ধর্ষণ করেছে। এদেশে তাদের রাজনীতি করার অধিকার থকতে পারে না। জামায়তের উচিত ছিল রাজনীতি করার আগে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়া। সেটা তারা করেনি। এদেশে রাজনীতি করার তারা নৈতিকভাবে অধিকার হারিয়ে ফেলেছে। জামায়াত এথন একটা মৃত শরীর। জামায়াত থেকে এখন অনেক নেতারা বেরিয়ে আসতে চাইবে এটাই স্বাভাবিক।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, জামায়াতে ইসলামীর প্রবীণরা এখনো তাদের পুরনো নীতি-কৌশল ও আদর্শ ধারণ করছে। কিন্তু তাদের নতুনরা এখন পরিবর্তন চায়। ফলে জামায়াত সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছে।

তিনি বলেন, জামায়াত এখনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। তবে অতীতের ভুলের জন্য তারা ক্ষমা চাইলে তাদের রাজনীতির বিষয়ে আওয়ামী লীগ বিবেচনা করে দেখবে।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমÐলীর সদস্য কর্নেল (অব.) ফারুক খান বলেছেন, বাংলাদেশে জামায়াত ইসলামী একটি যুদ্ধাপরাধী দল। এদেশে তাদের কানা কড়িও মূল্য নেই। ব্যরিস্টার আব্দুর রাজ্জাক দেশের বাইরে রয়েছে, তিনি দল থেকে পদত্যাগ করতেই পারেন। এ ঘটনা কতটা সত্য, তা আমার জানা নেই। এ বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, জামায়াতের মতো যুদ্ধাপরাধীদের দেশে থাকা উচিত নয়। জামায়াতের মধ্যে যাদের ন্যূনতম বিবেকবোধ রয়েছে তাদের দলের সঙ্গে থাকা উচিত নয়। ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক এ দল থেকে পদত্যাগ করে কিছুটা হলেও বিবেকের কাছে মুক্তি পেয়েছে।

মন্তব্য

মন্তব্য