প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন নিয়ে ইলিয়াসের ভিডিও প্রকাশ

এম.এ. আলম শুভ //
গত ১৮ই নভেম্বর জনপ্রিয় তরুন কণ্ঠশিল্পী ইলিয়াস হোসাইন তার অফিসিয়াল ভেরিভাইড ফেন পেইজে একটি ভিডিও আপলোড করেন, ভিডিওটির বিষয়বস্তু ছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গত ১০ বছরের উন্নয়ন তরুণদের কাছে তুলে ধরা, পাশাপাশি ‘হাসিনা অ্যা ডটার্স টেইল ‘ চলচ্চিত্রটি নিয়ে কিছু কথা। ভিডিওটি আপলোডের পর থেকেই ব্যপক  আলোড়ন সৃষ্টি করেছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। গতকাল থেকে ভিডিওটি নিয়ে আলোচনা যেমন ছিল পাশাপাশি সমালোচনাও কম ছিলনা, ভিডিওটি সোশ্যাল মাধ্যমে শেয়ার হয়েছে প্রচুর। তবে  বেশির ভাগ কমেন্টই ছিল ইতিবাচক। ১৩ মিনিটের ভিডিওটি জুড়েই রয়েছে উন্নয়নের কথা এবং প্রধান মন্ত্রীর প্রতি সম্মান। ভিডিওটিতে তুলে আনা হয়েছে পদ্মা সেতু, মেরিন ড্রাইভ, হাতিরঝিল, মেট্রো রেল , বিদ্যুতের উন্নয়ন,রহিংগা ইস্যু, ইন্টারনেটের সহজলভ্যতা ইত্যাদির কথা ।
এ প্রসংগে ইলিয়াস বলেন, গত ১৫ই নভেম্বর ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফোরামের সদস্য হিসেবে ‘হাসিনা অ্যা ডটার্স টেইল ‘ চলচ্চিত্রটির স্পেসাল স্ক্রিনিংটি দেখি, দেখার পর আমি আমার কান্না থামাতে পারছিলামনা। আমার কাছে মনে হচ্ছিল যে মানুষটা আমাদের জন্য এত কিছু করছেন নিজের বোনবাদে পুরো পরিবারকে হারানোর পরও, তাহলে তার প্রতি আমরা কেন আমাদের কৃতজ্ঞতা দেখাতে পারবোনা?  মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আমার শ্রদ্ধা এবং সম্মানের জায়গা থেকেই আমি ১৩ মিনিটের এই ভিডিওতে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর গত ১০ বছরের   উন্নয়নের কিছু অংশ নিয়ে কথা বলি এবং ভিডিও  প্রকাশ করি।
‘হাসিনা অ্যা ডটার্স টেইল ‘চলচ্চিত্রটি নিয়ে ইলিয়াস বলেন,  মাত্র ৭০ মিনিটের একটি চলচ্চিত্রে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার যুদ্ধময় পুরো জীবনের ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে এখানে। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট একমাত্র বোন বাদে পুরো পরিবারকে হারানোর পর একটা মানুষের কতটুকু দৃঢ় মানসিক মনোবল থাকলে তিনি আবার দেশে ফিরে আসেন, ফিরে আসার প্রতিটা পথে ছিল বাঁধা আর  মৃত্যুর ভয়, যেখানে আমরা পরিবারের ১ জন সদস্যের চলে যাওয়াকেই মেনে নিতে পারিনা,  শোক কাঁটাতে অনেক সময় লেগে যায়,  সেখানে শেখ হাসিনা কিভাবে পেরেছেন তা এই চলচ্চিত্রে ( ‘হাসিনা অ্যা ডটার্স টেইল ) তুলে ধরা হয়েছে। তুলে ধরা হয়েছে এক হার না মানা  নারীর গল্পকে, তুলে ধরা হয়েছে বাবা-মা হারা এক সন্তানের গল্পকে, ভাই হারা বোনের গল্পকে। যে বাঙ্গালি জাতির জন্য তার বাবা এই দেশটাকে রক্ষা করেছেন, বাংলাদেশটাকে এনে দিয়েছেন, সেই বাংলাদেশেই কিছু কুলাঙ্গারের হাতে প্রান দিতে হয়েছে তার বাবা সহ পুরো পরিবারকে, এরপরও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ফিরে এসেছেন সেই আমাদের কাছেই, বাঙ্গালিদের কাছেই। পরিবারের একজন অলস সদস্য থেকে পুরো জাতির দায়িত্ব কিভাবে নিয়েছেন তা এই ছবিতে আছে। একটা মানুষ এত Simple life lead কিভাবে করতে পারে সেটা উনাকে না দেখলে বুঝা মুশকিল যিনি একটা দেশের প্রধানমন্ত্রী, যার নেই কোন লোভ, হিংসা। অসাধারন এক কথায়। যারা এই চলচ্চিত্রটি না দেখবেন তারা অনেক কিছুই মিস করবেন। শুধু বাংলাদেশ নয় পুরো পৃথিবীর কাছে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর জীবন কাহিনী শিক্ষণীয় হয়ে থাকবে।দলমত নির্বিশেষে একজন আদর্শ মানুষের জীবন কেমন হয় তা জানার জন্য হলেও ছবিটি সবাই দেখে আসুন।চোখের পানি ধরে রাখতে পারবেন না Challange করলাম।প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন আগেই ইলিয়াসের না বলা কথা-৪ গানটি ইউটিউবে  ২ কোটি ভিউ ছাড়িয়েছে। বর্তমানে বেশকিছু নতুন গান নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন

মন্তব্য

মন্তব্য