ফুলে ফুলে সিক্ত হলেন অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার

হালিম সৈকত,কুমিল্লা //
“ফসলের মাঠ বলে দেবে কুমিল্লার কোথায় শুরু আর কোথায় শেষ”। আয়তন বলে দিতে হবে না। কথাটি বলেছিলেন কুমিল্লা প্রথিতযমা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার। পেশায় ছিলেন একজন শিক্ষক। অবহেলিত জনপদে শিক্ষার আলো ছড়াতে গড়ে তুলেছিলেন অনেকগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ৩১ অক্টোবর এই মহান মানুষটির মৃত্যু বার্ষিকী। ১৯৯৪ সালের ৩১ অক্টোবর তিনি এই পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে যান পরপারে।
বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী এই মানুষটি ১৯৪৫ সালের ২৫ আগস্ট জন্ম গ্রহণ করেন বর্তমান কুমিল্লা জেলার লালমাই উপজেলার মেহেরকুল দৌলতপুর গ্রামে। বাবা মৌলভী মিয়াজান মজুমদার ছিলেন আইয়ূব খান আমলে বাগমারা ইউনিয়ন বোর্ডের প্রেসিডেন্ট। মাতা আতরের নেছা ছিলেন একজন গৃহিনী। ৭ ভাই বোনের মধ্যে তিনি ৬ষ্ঠ। ছোটবেলায় তাঁকে সবাই আবু বলে ডাকতেন।
কুমিল্লার জনপ্রিয় নেতা কালের শ্রেষ্ঠ সন্তান অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদারের ২৪ তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত হয়েছে আজ। ৩১ অক্টোবর ২০১৮ইং বুধবার সকাল ১০টায় সমাধিস্থলে মানুষের ঢল নামে। ফুলে ফুলে ভরে যায় সমাধিস্থল।
কুমিল্লার লালমাই উপজেলার বাগমারা মহিলা কলেজের পাশে অবস্থিত এই মহান নেতার কবরস্থান। তাঁর এই প্রয়ান দিবসে মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করে লালমাই উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন লালমাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে এম ইয়াসির আরাফাত, সদর (দ:) উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম সারওয়ার, লালমাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মালেক বি.কম, সদর (দ:) আ’লীগের সহ সভাপতি রফিকুল ইসলাম, বাগমারা উত্তর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম, জেলা পরিষদের সদস্য সালমা বেগম , লালমাই উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোহাম্মদ শাহজাহান মজুমদার, সহ সভাপতি মো. আবদুল মতিনসহ আ’লীগ, মহিলা লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রী, শিক্ষকবৃন্দ এবং কুমিল্লা-৯ নির্বাচনী এলাকার সর্বস্তরের জনগণ।
এছাড়াও অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার মহিলা কলেজ আযোজন করে মিলাদ ও আলোচনাসভার। এতে সভাপতিত্ব করেন কলেজ অধ্যক্ষ ফৌজিয়া সুলতানা। উপস্থিত ছিলেন গভর্নিংবডির সভাপতি আবদুল মালেক বি.কম, গভর্নিংবডির সদস্য আবদুল লতিফ মাস্টার, ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান শামীম ইকবাল, অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহŸায়ক সহকারি অধ্যাপক মো. আমির হোসেন, প্রভাষক মো. আমির হোসেন, সীমা রানী দাসসহ সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা ও ছাত্রছাত্রী প্রমুখ। এছাড়া লালমাই সরকারি কলেজ আয়োজন করে নানা অনুষ্ঠানের।

মন্তব্য

মন্তব্য