যশোরে পরিবহন ধর্মঘটের ২য় দিনেও বাসবিহীন সড়ক,চরম দুর্ভোগে জনসাধারণ

 

জাহিদ হাসান,(যশোর)সংবাদদাতা // সড়ক পরিবহন আইন’১৮ সংস্কারসহ ৮দফা দাবিতে পরিবহন শ্রমিকদের ৪৮ ঘণ্টার কর্মবিরতির ২য় দিনেও যশোরে যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাক চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।ধর্মঘটে দূরপাল্লার যাত্রীসহ স্কুল-কলেজগামী ছাত্রছাত্রীরা পরেছিলো চরম বিপাকে।পরিবহন ধর্মঘটের কারণে জনসাধারণের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত ছিলো।সেই সাথে  সকাল থেকেই গুড়িগুড়ি বৃষ্টি যেন ভোগান্তির মাত্রাটা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।পরিবহন ধর্মঘটের কারণে জনসাধারণের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত ছিলো।গতকাল ও সকাল থেকেই যশোর আন্তঃজেলা টার্মিনালগুলো থেকে কোন বাস ছেড়ে যেতে দেখা যায়নি।জেলা শহর থেকে অন্য জেলা যাওয়াও বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন গুলো।বেশিরভাগ যাত্রীকে নির্ভর করতে হচ্ছে অটোরিক্সার উপর। প্রধান সড়কগুলোতে কিছু রিকশা চলাচল করলেও অফিসগামী যাত্রী আর স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের যানবাহনের আশায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। ধর্মঘটের নামে এ নৈরাজ্যে জনগণের মাঝে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে।সোমবার সকাল ১১ টার দিকে চাঁচড়া চেকপোষ্ট মোড়ে দেখা গেছে দাঁড়িয়ে রয়েছে অসংখ্য মানুষ,কিন্তু কোন পরিবহন নেই।তারা সবাই ধর্মঘটের কথা জেনেও বের হয়েছে।তেমনি একজন শার্শার রহিম,তার বৃদ্ধ বাবাকে নিয়ে যশোরে এসেছিলো ডাক্তারের কাছে।সকালে খুব কষ্ট করে নছিমনে আসলেও,এখন যাওয়ার সময় গাড়ি পাওয়া যাচ্ছে না।যা পাওয়া গেলেও অতিরিক্ত বেশী ভাড়া দিতে হবে। যশোর শহরে কথা হয়,রাজ্জাক কলেজের শিক্ষক মো: বিল্লাল সানীর সাথে তিনি নড়াইল থেকে যশোরে তার কর্মস্থলে যোগ দেওয়ার জন্য এসেছেন।পরিবহন ধর্মঘটের কারণে বাস না পেয়ে এসেছেন সিএনজিতে।গুনতে হয়েছে নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে দ্বী গুন।এছাড়া পরিবহন ধর্মঘটের ১ম দিনের মত ২য় দিনেও চাঁচড়া চেকপোষ্ট,পালবাড়ী মোড়,মুড়লী,খাজুরা বাসস্থান সহ বিভিন্ন এলাকায় যানবাহন না থাকায় অফিসগামী এবং যশোরের বাহিরে যাওয়ার জন্য রাস্তার পাশে দাড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।অনেকেই আবার রিকসা বা ইজিবাইকে করে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে হচ্ছে।এমন কয়েকজনের সাথে কথা বলে তারা অভিযোগ করেন,তারা যাএীদের দুর্ভোগকে পুঁজি করে ইচ্ছা মতো ভাড়া আদায় করছে।অনেকেই আবার বাড়তি ভাড়ার জন্য পায়ে হেঁটে যাচ্ছে।এদিকে পরিবহন ধর্মঘটের প্রথম দিনের মত দ্বিতীয় দিনেও শহরের মোড়ে মোড়ে সকাল থেকেই অবস্থান নেয়  পরিবহন শ্রমিকরা।যশোর পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে অবস্থান নেওয়া শ্রমিকরা বলেন ৪৮ ঘন্টার মধ্য তাদের দাবি না মেনে নিলে আমরা কঠোর কর্মসূচিতে যাবো।

মন্তব্য

মন্তব্য