শ্রীপুরে ঘুমন্ত হেলপার পিষ্ট হল ট্রাকের চাকায়

সাইফুল আলম সুমন,নিজস্ব প্রতিবেদক:
সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ উপজেলার ধনগাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল হাইয়ের ছেলে যুবক মমিন (২৫)। সারারাত না ঘুমিয়ে চালকের সাথে কথা বলতে বলতে পথ চলেছে। সামনে পেছনে যানবাহনের আগাম ইঙ্গিত দিয়ে চালককে সহযোগিতা করেছে।

নির্ঘুম ক্লান্তি সারাতে আর প্রচন্ড রৌদ্রতাপ এড়াতে থেমে থাকা ট্রাকের নিচেই ঘুমিয়েছিল যুবকটি। কিন্তু সেই ঘুম তার জীবনের স্থায়ী ঘুম হয়ে গেছে। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে দুনিয়া থেকে তার চির বিদায় হয়েছে সে।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, শুক্রবার রাতে সিরাজগঞ্জ থেকে ট্রাক ভর্তি ভুট্টা নিয়ে গাজীপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয় মমিন। ট্রাক চালক একই জেলার সলঙ্গা উপজেলার চড়িয়া কামারপাড়া গ্রামের সাফায়েত হোসেনের ছেলে নাজমুল হোসেন (২৩)। শনিবার সকাল সাড়ে সাতটার দিকে তারা গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের চকপাড়া এলাকার সুজলা ফিড মিলের কাছে পৌঁছে। ভুট্টা রিসিভ করার জন্য মিলের গেটের সামনে অপেক্ষায় থাকে। কর্তৃপক্ষ আসতে দেরী হওয়ায় স্থানীয় একটি হোটেল থেকে নাস্তাও সেরে নেয় তারা। পরে সারা রাতের নির্ঘুম ক্লান্তি সারাতে চালকের কাছে বলে তাদের ট্রাকের নিচেই ঘুমাতে যায় ট্রাক হেলপার মমিন। কিন্তু চালক এটি জানতেন না। এদিকে সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ভুট্টাও রিসিভ হয়নি।

চালক নাজমুল জানায়, ঘটনার সময় মিলের আরেকটি ট্রাক কারখানার সামনে চলে আসে। সেটিকে জায়গা করে দিতে হেলপার মমিনকে ডাকাডাকি করে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। সে ট্রাকের নিচে ঘুমিয়েছে এটিও তার জানা ছিল না।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, কোনো সাড়া না পেয়ে সে ট্রাকটি স্টার্ট করে চালানো শুরু করে। এদিকে ট্রাকের পেছনের দুটি চাকা ঘুমন্ত মমিনের দেহের ওপর দিয়ে চলে যায়। কোনো কিছু বলার আগেই মমিনের দেহ নিথর হয়ে পড়ে।

শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মঞ্জুরুল ইসলাম জানান, মনো ফিড মিলের জায়গা ভাড়া নিয়ে সুজলা ফিড মিলটি প্রাণি খাদ্য উৎপাদন করে আসছে। এ ঘটনায় ট্রাক চালক নাজমুল হোসেন ও সুজলা ফিড মিলের ব্যবস্থাপক শরীফ উদ্দিনকে আটক করা হয়েছে। মরদেহ ময়না তদন্তের গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য

মন্তব্য