শ্রীপুরে সীসা কারখানা উচ্ছেদের দাবীতে কারখানা ও আঞ্চলিক সড়ক অবরোধ

সাইফুল আলম সুমন,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

গাজীপুরের শ্রীপুর পৌরসভার কেওয়া পূর্ব খন্ড এলাকায় একটি সীসা কারখানা বন্ধের দাবীতে আঞ্চলিক সড়ক দুই ঘন্টা অবরোধ করে রাখে একটি বিদ্যালয়ের শিশু শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী। এ কর্মসুচী কারখানার আশপাশের এলাকা ছড়িয়ে পড়ে। শনিবার বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত আনসার রোড-আসপাডা সড়কে এ অবরোধ ও মানববন্ধন কর্মসুচী পালিত হয়। কারখানাটিতে সীসা পুড়িয়ে ব্যাটারী তৈরী করে পরিবেশ দুষণের অভিযোগ আনা হয়।

কারখানার কারণে গবাদি পশুর মড়ক, ২ শ্রমিকের মৃত্যু, ফসলের ক্ষতি, শিক্ষার্থী ও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসীর চিকিৎসা ব্যায় বিবরণীসহ নানা ধরণের দাবী সংবলিত ফেস্টুন নিয়ে স্থানীয় শিশু শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। টাকার অংকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৬১ লাখ ৫০ হাজার টাকা বলে ফেস্টুনে দাবী করা হয়। স্থানীয়দের অভিযোগ কোনো পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই গত চার বছর যাবত গেলি ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানী লিমিটেড নামের কারখানাটি সীসা পুড়িয়ে ব্যাটারী তৈরী করে আসছে। এতে কেওয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শ্বাসকষ্টসহ নানা রোগে ভুগছে। বিদ্যালয়ের পঠন পাঠন বিঘ্নিত হচ্ছে। এলাকার আবাদি জমিসহ পরিবেশ দুষিত হয়ে উঠেছে। দুইজন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। অসংখ্য গবাদি পশু মারা গেছে। এলাকাবাসীর মধ্যে অসুখ বিসুখ ছড়িয়ে পড়েছে। কারখানা বন্ধে এর আগেও বেশ কয়েকবার মানববন্ধন কর্মসুচী পালিত হয়েছে।

এ বিষয়ে শ্রীপুর গণজাগরণ মঞ্চের প্রধান সমন্বয়ক অনোয়ার হোসেন বলেন, কারখানা ও সড়ক অবরোধের সময় ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে ক্ষতিকর ও অননুমোদিত কারখানা রক্ষার চেষ্টা করা হয়েছে। আগামী ৭২ ঘন্টায় কারখানা সরিয়ে না নিলে বুধবার কারখানা ঘেরাও কর্মসুচী ও কারখঅনায় তালা ঝুলিয়ে দেয়া হবে।
গাজীপুর শিল্প পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) শামসুজ্জোহা বলেন, গেলি ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানী নিরাপত্তাহীনতার কারণ জানিয়ে পুলিশ সদস্যদের আহবান করে। অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অবরোধের সময় পুলিশ মোতায়েন ছিল।

জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে, কারখানাটি ভাড়া জায়গায় পরিচালিত হচ্ছে। অনিয়মের কারণে গত কয়েকদিন আগে অভিযান চালিয়ে জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

মন্তব্য

মন্তব্য