ডিএমপি’র আহবান আন্দোলনরত  শিক্ষার্থীরা যাতে ঘরে ফেরে

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীতে বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা ও তাদের শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান ডিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সিটিটিসি) মোঃ মনিরুল ইসলাম বিপিএম-বার, পিপিএম-বার। সেই সাথে কোমলমতি শিশুদের ঘরে ফিরে যাওয়ার আহবান জানান তিনি। বৃহস্পতিবার (০২/০৮/২০১৮ইং) দুপুর ১টায় ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ আহবান জানান তিনি।

গত ২৯ জুলাই ঘটে যাওয়া বাস দুর্ঘটনার পরবর্তী ব্যবস্থা সম্পর্কে মনিরুল ইসলাম বলেন, জাবালে নূর পরিবহনের ঐ বাসের চালক ও হেলপারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বর্তমানে বাস চালক মাসুম বিল্লাহ ৭ দিনের পুলিশ রিমান্ডে আছে। বিআরটিএ এর পক্ষ থেকে জাবালে নুর পরিবহনের রেজিস্টেশন ও রুট পারমিট বাতিল করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিহত দুই শিক্ষার্থীর প্রত্যেক পরিবারকে ২০ লক্ষ টাকার সঞ্চয়পত্র অনুদান দিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, আগামী মন্ত্রিসভার মিটিং এ ‘নিরাপদ সড়ক আইন’ উত্থাপিত হবে। আমরা আশা করছি আইনটি দ্রুত পাশ হবে। বর্তমান মোটরযান আইনটি যুগোপযোগি না। নতুন আইনে শাস্তি ও জরিমানা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

সিটিটিসি’র প্রধান বলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে আজ দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও কিছু শিক্ষার্থী রাস্তা বন্ধ করে গাড়ি চেকিং করছে। এতে এ্যাম্বুলেন্স, হজ্জ যাত্রী ও সাধারণ মানুষ চরম দূর্ভোগে পড়েছে। কোন উস্কানিতে কান না দিয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যেতে অনুরোধ করছি। কিছু স্বার্থান্বেষী মহল বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে ২০১২ ও ২০১৩ সালের পুরাতন ছবি বর্তমান সময়ে শিক্ষার্থীদের উপর নির্যাতনের ছবি বলে অপপ্রচার চালাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম দেখা যাচ্ছে একজন ইউনিফর্ম পরিহিত পুলিশ একটি বাচ্চার গলা চেপে ধরেছে। ঘটনার বাস্তবতা হলো ২০১৩ সালে রামপুরা এলাকায় ডিউটি চলাকালীন এই অপেশাদার আচরণটি করে এএসআই পলাশ চন্দ্র সরকার। এ ঘটনায় পলাশের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা রুজু হয় এবং শাস্তি হিসেবে তার ০৩ বছরের জন্য পদোন্নতি বন্ধ করা হয়। তিনি শিক্ষার্থীদের অনুরোধ জানিয়ে বলেন, এসব মিথ্যা ছবি ও অপপ্রচারে কান না দিয়ে ঘরে ফিরে যেতে। তাদের সকল দাবী বাস্তাবায়ন হবে। যে সকল দাবী এই মুহূর্তে বাস্তবায়ন যোগ্য পুলিশের পক্ষ থেকে তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

সাংবাদিকের এক প্রশ্নে উত্তরে তিনি বলেন, আমরা শিক্ষার্থীদের বিষয়টি যথাযথ মানবিকতার সাথে দেখছি। আন্দোলনে এখন পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের উপর কোন প্রকার আগ্নেয়াস্ত্র ও শক্তি প্রয়োগ করেনি পুলিশ।