উত্তরা রণক্ষেত্র, বাসে আগুন

নিজস্ব প্রতিবেদক//
বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় বিচারসহ ৯ দফা দাবিতে আন্দোলনরত বিক্ষুব্ধ কলেজ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়েছে। বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীরা দুইটি বাসে আগুন দিয়েছে। দুই ঘণ্টার বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে যান চলাচল।

মঙ্গলবার বিকাল চারটার দিকে উত্তরার জসীম উদ্দিন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এর আগে দুপুরে আরও একটি বাসে আগুন দিয়েছিলো শিক্ষার্থীরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উত্তরার আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন হেড কোয়ার্টারের সামনে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হচ্ছে। রাজলক্ষিতে এনা পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দিয়েছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। দুই ঘন্টার বেশি সময় ধরে রাজধানীর ব্যস্ততম সড়কটিতে যানচলাচল বন্ধ রয়েছে।

এর আগে সকাল থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করতে থাকে। মতিঝিলে নটরপেম কলেজের শিক্ষার্থীরা, ফার্মগেটে কয়েকটি স্কুলের শিক্ষার্থীরা, ধানমন্ডিতে সিটি কলেজের শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করে।

উত্তরায়ও শিক্ষার্থীরা জড়ো হতে শুরু করে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী শিক্ষার্থীদের বারবার রাস্তা থেকে সরে যেতে বলা হলেও তারা জানায় চারটা পর্যন্ত অবস্থান করে চলে যাবে। পরে র‌্যাব-পুলিশ বিকাল সাড়ে তিনটার পর একটি বাস ছেড়ে দিলে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে শিক্ষার্থীরা। তারা বাসটি ভাঙচুর চালিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এরপর র‌্যাব ও পুলিশ শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিচার্জ শুরু করে। এতে শিক্ষার্থীরা আরও ক্ষুব্ধ হয়ে পড়ে এবং এনা পরিবহনের একটি বাস ভাঙচুর করে এবং আগুন ধরিয়ে দেয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আইনশঙ্খলা বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে।

রবিবার রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনের বিমানবন্দর সড়কে বাস চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। এ ঘটনায় ঘাতক বাসটির চালকস সহকারীসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। আর নিহত দিয়ার পিতা একটি মামলাও করেছেন।

তবে সোমবার থেকে ঘাতক বাসচালকের কঠোর শাস্তিসহ ৯ দফা দাবিতে আন্দোলন করছে রাজধানীর বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। তারা বিভিন্ন সড়কে দফায় দফায় অবরোধ করার কারণে বিপাকে পড়তে হচ্ছে রাজধানীবাসীকে।

মন্তব্য

মন্তব্য