লালমাই উপজেলায় কালাম মজুমদার মহিলা কলেজ সেরা

হালিম সৈকত,কুমিল্লা : সারাদেশে এক যোগে গত ১৯ জুলাই প্রকাশ পেয়েছে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল। কুমিল্লায় পাশের হার ৬৫.৪২%। কুমিল্লায় গত বছর এই হার ছিল ৪৯.৫৯%। তুলনামূলকভাবে এই বছর পাশের হার বৃদ্ধি পেয়েছে। তথাপি ৩৫ হাজার ছাত্র-ছাত্রী অকৃতকার্য হয়েছে।
কুমিল্লার নবগঠিত লালমাই উপজেলার মধ্যে ফলাফলের দিক থেকে প্রথম হয়েছে অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার মহিলা কলেজ। এই কলেজে পাশের হার ৫০.৯৯%। যেখানে অন্যান্য কলেজে পাশের হার আরও কম। সদর (দ) এবং লালমাই উপজেলার সবগুলো কলেজের কোন ছাত্র-ছাত্রী জিপিএ-৫ না পেলেও একমাত্র জিপিএ-৫ পেয়েছে অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার মহিলা কলেজের ব্যবসায় শিক্ষা শাখার ছাত্রী বিথী আক্তার। গত বছরও এই কলেজটি উপজেলার মধ্যে প্রথম হয়েছিল।

সারা দেশের ন্যায় এই কলেজটিতেও ইংরেজি, রসায়ন এবং আইসিটিতে ফেল করেছে বেশি। শুধুমাত্র ইংরেজিতে ফেল করেছে ৫৫ জন।
অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার মহিলা কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও লালমাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক বি.কম বলেন, অন্যান্য কলেজের তুলনায় হয়ত আমাদের কলেজ ভাল করেছে কিন্তু আমাদের শিক্ষকরা যে সার্ভিস প্রদান করেন সেই তুলনায় ফলাফল তেমন ভালো নয় বলে আমি মনে করি। ছাত্রীদের আরও ভাল করার জন্য কি কি করতে হবে সেই জন্য আমরা আগামীকাল মূল্যায়ন মিটিং ডেকেছি। সেখানে বসে আমরা বিশ্লেষণ করে তুলে আনব আমাদের করণীয় কি? দূর্বল দিক কি কি রয়েছে।

ভাল ফলাফলের বিষয়ে কলেজটির অধ্যক্ষ ফৌজিয়া সুলতানা বলেন, লালমাই ও সদর (দ) উপজেলার মধ্যে হয়ত আমরা ভাল ফলাফল অর্জন করেছি। কিন্তু জাতীয়ভাবে মূল্যায়ন করলে আমাদের আরও ভাল করতে হবে। এই বছর আমাদের একজন ছাত্রী জিপিএ-৫ পেয়েছে। আগামীতে কিভাবে আরও বৃদ্ধি করা যায় সেই প্রচেষ্টা আমাদের সকলের থাকবে। কিভাবে ফেলের হার কমিয়ে আনা যায় সেই চেষ্টাও করতে হবে।
লালমাই উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রতন কুমার সাহা বলেন, উপজেলার সার্বিক চিত্র বিশ্লেষণ করলে খুব একটা ভাল বলা যাবে না। তবে আমরা চেষ্টা করছি মাসিক সমন্বয় সভায় বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষদের উপস্থিত রেখে এই বিষয়ে কথা বলার জন্য। খুব শীঘ্রই আমরা এটা করব। কলেজগুলোতে আমাদের পরিদর্শন করার সুযোগ কম। তবে আমাদের উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্যার এই বিষয়ে খুব তৎপর। অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার মহিলা কলেজ ভাল করেছে তাদের জন্য শুভ কামনা।

উল্লেখ্য কলেজটির প্রতিষ্ঠাতা বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল) এমপি। কলেজটি ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত । যার স্বপ্ন দ্রষ্টা কুমিল্লার গণমানুষের নেতা সাবেক এমপি মরহুম অধ্যক্ষ আবুল কালাম মজুমদার। অত্যন্ত মনোরম পরিবেশে অবস্থিত কলেজটিতে ব্যবস্থপনা, সমাজ কর্ম ও হিসাব বিজ্ঞান তিনটি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু রয়েছে। বর্তমানে প্রথম বর্ষ এবং দ্বিতীয় বর্ষের ক্লাস চলছে।

মন্তব্য

মন্তব্য