শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেবের রথযাত্রা শুরু

পাপিয়া বাড়ৈ (জয়), প্রতিনিধি// সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেবের রথযাত্রা উৎসব ১৪ই জুলাই শনিবার থেকে শুরু হয়েছে । আগামী ২২শে জুলাই রোববার উল্টোরথ যাত্রার মধ্য দিয়ে এ উৎসব শেষ হবে। প্রতিবছর আষাঢ়ের শুক্লপক্ষের দ্বিতীয়া তিথিতে পালিত হয়ে থাকে শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেবের রথযাত্রা।
এ উপলক্ষে বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠন এবং মন্দির নানা মাঙ্গলিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে । রাজধানী ঢাকায় আন্তর্জাতিক কৃষ্ণ ভাবনামৃত সংঘ (ইসকন) রথযাত্রা উপলক্ষে ৯ দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। প্রতিবারের মতো এবারও সবচেয়ে বড় রথযাত্রা উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে মানিকগঞ্জের ধামরাইয়ে।
মানুষের মধ্যে সম্প্রীতি, শান্তি ও মৈত্রীর পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য তিনি বিগ্রহ গণউৎসব শান্তি ও মৈত্রীর মিলনলগ্নে মন্দির ছেড়ে রাজপথে সবাইকে দর্শন দানের জন্য বেরিয়ে আসেন। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস জগন্নাথ দেব হলেন জগতের নাথ বা অধীশ্বর। জগত হচ্ছে বিশ্ব আর নাথ হচ্ছে ঈশ্বর। তাই জগন্নাথের অর্থ হচ্ছে জগতের ঈশ্বর। তার অনুগ্রহ পেলে মানুষের মুক্তিলাভ হয়। জীবরুপে তাকে আর জন্ম নিতে হয় না। এ বিশ্বাস থেকে রথের উপর জগন্নাথ দেবের প্রতিমা রেখে রথযাত্রা করা হয়।
সকালে বিভিন্ন মাঙ্গলিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় রথযাত্রা । এর মধ্যে ছিল হরিনাম সংকীর্তন, বিশ্ব শান্তি ও মঙ্গল কামনায় অগ্নিহোত্র যজ্ঞ, মহাপ্রসাদ বিতরন, আলোচনা সভা, ভগবত কথা ও শ্রীমদ্ভগবত গীতা পাঠ। ঢাকার স্বামীবাগের আন্তর্জাতিক কৃষ্ণ ভাবনামৃত সংঘ (ইসকন) আশ্রমে বিশ্বশান্তি ও মঙ্গল কামনায় অগ্নিহোত্র যজ্ঞের মধ্য দিয়ে রথ যাত্রার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এ উপলক্ষে দুপুরে স্বামীবাগ ইসকন আশ্রমে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
পরে এখান থেকে বর্নাঢ্য সাজে রথে জগন্নাথ দেব, শুভদ্রা ও বলরামের প্রতিকৃতিসহ শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি টিকাটুলি, ইত্তেফাক মোড়, শাপলা চত্বর, দৈনিক বাংলা, পুরানা পল্টন, জাতীয় প্রেসক্লাব, হাইকোর্ট, দোয়েল চত্বর, টিএসসি, জগন্নাথ হলের সামনে দিয়ে পলাশী হয়ে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে নিয়ে যাওয়া হয়।
এদিকে রথযাত্রা উপলক্ষে রাজধানীর জয়কালী মন্দিরস্থ রাম-সীতা মন্দিরে আলোচনা সভা আয়োজন করা হয়। পুরনো ঢাকার শাঁখারী বাজার কমিটি আয়োজিত রথযাত্রাটি শাঁখারীবাজার থেকে গৌড়ীয় মঠে গিয়ে শেষ হয়। জগন্নাথ জিউ মন্দিরের রথযাত্রা তাঁতীবাজার থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিন করে। ঢাকার বাইরে ফরিদপুরেও নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে রথ যাত্রা শুরু হয়েছে। এ উপলক্ষে ফরিদপুর শ্রী অঙ্গন থেকে শুরু হয়ে শহরের ব্রাহ্মণকান্দা আঙ্গিনায় গিয়ে শেষ হয়। আগামী ২২জুলাই ফিরতি রথ উৎসবের মাধ্যমে এ রথযাত্রার আনুষ্ঠানিকতা শেষ হবে।
কথিত আছে- রথের সময় জগন্নাথ বা শ্রী কৃষ্ণকে নিয়ে যাওয়া হয় নীলাচল থেকে সুন্দরাচলে। সেখানে শ্রী কৃষ্ণ ব্রজবাসীদের সাথে আটদিন ছিলেন । রথ টানার সময় রথের সামনে দুপাশে দুই দল ও পিছনে দুপাশে দুই দল আর শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভু মাঝখানে থাকতেন। রথের রশি ছুয়ে রথ টানা শুধু নয়, বেশির ভাগ মানুষ রথের রশি যতটুকু পারেন ছিঁড়েও নেন। টুকরো টুকরো রথের রশির সুতো হাতে বেধে রাখেন অনেকেই। মানুষের বিশ্বাস এই মাদুলি সমস্ত বিপদÑআপদ থেকে রক্ষা করবে।
এছাড়া রাজধানীর অন্যান্য মন্দিরসহ দেশের বিভিন্ন মন্দিরেও রথযাত্রার উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ রথযাত্রা উৎসব নির্বিঘেœ করার স্বার্থে ওই সময় বিকল্প সড়কে যানবাহন চলাচলের অনুরোধ জানিয়েছেন। একই সঙ্গে রথযাত্রা চলাকালে আইনÑশৃঙ্খলা রক্ষায় সবার সহযোগিতা কামনা করেছে ডিএমপি।

মন্তব্য

মন্তব্য