কুমিল্লার তিতাসে অবৈধ অস্ত্রসহ গ্রেফতার ২

হালিম সৈকত,কুমিল্লা//কুমিল্লা জেলার তিতাস উপজেলা থেকে হত্যা মামলার আসামীসহ ২ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার অফিস।
জেলা পুলিশ সুত্রে জানা যানা যায়, ৫ জুলাই রাত ২.৩০ মিনিটে জেলা গোয়েন্দা শাখার একটি জিডির সুত্র ধরে অভিযান পরিচালনা করেন। জিডি নম্বর হচ্ছে ৮৬, তারিখ: ৪ জুলাই ২০১৮ইং। জিডি মূলে অভিযান পরচিালনা করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কুমিল্লা (উত্তর ) মোহাম্মদ শাখাওয়াত হোসেন (আলফা-৪) এবং (মুরাদনগর সার্কেল) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জাহঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে। তাদের সাথে ছিলেন ডিবির চৌকস অফিসার এসআই শাহ কামাল আকন্দ পিপিএম,এসআই নন্দন চন্দ্র সরকার, এএসআই মো. শাহাবুল ইসলাম,রুবেল মজুমদার, সাইফুল ইসলাম,মো. আবদুল্লাহ খন্দকার, মো. সুমন মিয়া, মো. মাইনুদ্দিন প্রমুখ। এছাড়া তিতাস থানার এসআই মোস্তফা চৌধুরী, মো. রেজাউল করিম, নান্নু মিয়া ও জোতিময় এই অভিযানে অংশগ্রহণ করেন।
এছাড়াও ছিলেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মো. নাসির উদ্দিন মৃধা, তিতাস থানার অফিসার ইনচার্জ মো. নুরুল আলম টিপু, ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মো. তৌহিদুল ইসলাম, মো. সাফায়েত হোসেন। দাউদকান্দি মডেল থানার মামলা নং ৮ তারিখ ৩ মে ২০১৮ ইং ধারা ১৪৩/১৪৯/৪৪৮/৩০২ পেনাল কোড মামলায় আসামী গ্রেফতার অভিযান চালানো হলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উক্ত দুই আসামীদেরকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, পুলিশ আসামী গ্রেফতার অভিযান পরিচালনাকালে ৫ জুলাই ২০১৮ ইং তারিখ রাত আড়াইটার সময় তিতাস থানাধীন নারান্দিয়া গ্রামে জনৈক আ: আলিম এর মালিকানাধীন টিনসেড ঘর থেকে মো. মোফাজ্জল হোসেন (৩১) কে গ্রেফতার করে। সে জালাল উদ্দিনের পুত্র। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলার তিতাস উপজেলার গাজীপুরে। অপর আসামী মো. বাবুল খানের পুত্র মো. সুমন খান (৩৮)। তার বাড়ি দাউদকান্দি উপজেলার রায়পুর গ্রামে।
তারা উভয়ই পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে। পরে তাদরে দেহ তল্লাশী করে আসামী মোফাজ্জলের কোমড়ের সামনের বাম পাশে পরিহিত লুঙ্গির গোজা থেকে একটি ৭.৬৫ বিদেশী পিস্তল পাওয়া যায়। যার মধ্যে ৬ রাউন্ড গুলি ভর্তি অস্থায় পাওয়া যায়। পরে বালিশের নিচ থেকে ১টি কালো রংয়ের চামড়ার ব্যাগে রক্ষিত ১টি ৯ সস বিদেশী পিস্তল পাওয়া যায়। এটির মধ্যে ৬ রাউন্ড গুলি ভর্তি ছিল।
অপর দিকে সুমনের কোমড়ে পাওয়া যায় ৮ রাউন্ড গুলি ভর্তি ১টি রিভলভার ম্যাগাজিনসহ। এই ঘটনায় তিতাস থানায় এজহার দায়ের করা হয়েছে।

মন্তব্য

মন্তব্য