বাঙ্গালী নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধের দাবীতে গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ড ঘেরাও

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:
বাঙ্গালী নদীর ভাঙ্গন থেকে গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার রামনগর গ্রাম রক্ষার দাবীতে গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ড ঘেরাও করে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে স্থানীয়রা।
বুধবার দুপুরে সাঘাটার রামনগর নদী ভাঙ্গন রক্ষা কমিটি’র আয়োজনে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন পানি উন্নয়ন বোর্ড ঘেড়াও করে রাখা হয় । পরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মোখলেছুর রহমান ভাঙ্গন প্রতিরোধে ব্যবস্থা নেয়ার আস্বাস দিলে মানববন্ধন ও ঘেরাও কর্মসূচি তুলে নেয়া হয় ।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, রামনগর নদী ভাঙ্গন প্রতিরক্ষা কমিটির সভাপতি গোলাম মওয়া, সাঘাটার কচুয়া ইউপি চেয়ারম্যান মাহাবুবর রহমান, সুশাসনের জন্য নাগরিক ( সুজন ) সাঘাটা উপজেলার শাখার সাধারন সম্পাদক প্রভাষক শাহ আলম, ডাঃ লিয়াকত আলী, ইউপি সদস্য হাবিবর রহমান, সিপিবি নেতা জজ্ঞেশ্বর বর্মণ প্রমুখ।
সাঘাটার কচুয়া ইউনিয়ন পরিষদের মাহবুবুর রহমান জানান, রামনগর, নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধে ব্যবস্থা না নেয়া হলে আমরা আরো কঠোর আন্দোলনের ডাক দিবো ।
মানববন্ধনে সাঘাটার কচুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যার মাহবুবুর রহমান জানান, এই ইউনিয়নে নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচে।ছ না । প্রতিবছর নদী ভাঙ্গনের শিকার হচ্ছে শত শত পরিবার। এবছর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ১শ” মিটার ভেঙ্গে যাওয়ায় চলতি বছর পানি প্রবেশ করে উঁচু কয়েকটি ইউনিয়নের ৩০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।
সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সাঘাটা উপজেলার শাখার সাধারন সম্পাদক শাহ আলম জানান, চলতি বছরে নদীর ভয়াল ভাঙ্গনের কবল হতে রামনগর গ্রামকে রক্ষার জন্য জরুরী ভিত্তিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের হস্তক্ষেপসহ নদী শাসনের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি কামনা করেন।
সাঘাটা উপজলার রামনগর নদী ভাঙ্গন প্রতিরক্ষা কমিটির সভাপতি গোলাম মওয়া জানান,দীর্ঘ কয়েক বছর থেকে আমরা মিছিল মিটিং মানববন্ধন করে আসছি। এখানে ভাঙ্গন প্রতিরোদে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছেনা।
চলতি বছরে গাইকান্ধা জেলার পলাশবাড়ী ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে চলা কাটাখালি ও বাঙ্গালী নদীর পূর্বতীরের সাঘাটা উপজেলার সীমানা এলাকার রামনগর, গ্রামের শতাধিক পারিবার নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়েছেন ।

মন্তব্য

মন্তব্য