চুমু নয়, এ যে একেবারে শয্যাদৃশ্য!

টেলিভিশন, ওয়েব সিরিজের টিআরপি নিয়ে সব সময়ই নির্মাতারা তটস্থ থাকেন। প্রত্যেকেই চান তার টিআরপি সকলের উপরে থাকুক। তাতে নির্মাতার যেমন চাহিদা বাড়ে তেমনি ভিউয়ার্স বেশি হলে বিজ্ঞাপন পেতে সুবিধা হয়। হিন্দি বিনোদনের এখন একটা বড় উপাদান হয়ে উঠেছে সেক্স। যৌনতার উপাদান সমৃদ্ধ ওয়েব সিরিজগুলোতে কাজ করতে গিয়ে শিল্পী ও নির্মাতাদের মধ্যে অনেক সময় বিরোধও বাড়ছে। কারণ নির্মাতারা পর্দায় যা দেখাতে চান, তার পুরোটা সংশ্লিষ্ট শিল্পীকে জানান দেন না। এমনটাই অভিযোগ করেছেন হিন্দি ওয়েব সিরিজে অভিষেক হওয়া অভিনেত্রী রেনে ধ্যানি। তিনি সম্প্রতি এই ধরনের ঘটনার সম্মুখীন হয়েছেন। পরিচালক তাকে বলেছিলেন সহ-অভিনেতাকে শুধু চুমু খেতে হবে। শুটে গিয়ে রেনে দেখলেন শুধু চুমু নয়, এ যে একেবারে শয্যাদৃশ্য! ‘কসম তেরে প্যায়ার কি’, ‘তেরে গলিয়া’ ইত্যাদি হিন্দি ধারাবাহিকে অভিনয় করা রেনের ডিজিটাল অভিষেক ঘটতে চলেছে ওয়েব সিরিজ ‘রাত্রি কি যাত্রী’ দিয়ে। বিপরীতে অভিনেতা পরাগ ত্যাগী। রেনের কথায়, ‘লকডাউনের ছয়-সাত মাস আগেই সিরিজটা শুট করেছিলাম আমরা। প্রথমে আমাকে বলাই হয়নি এ রকম একটি সিন রয়েছে। আমাকে বলা হয়েছিল স্মুচিং সিন রয়েছে। বেডসিনের খবর জানার পর আমাকে তা না জানানোর কারণ জিজ্ঞাসা করলে পরিচালক বলেছিলেন, চরিত্রের প্রয়োজনেই এই দৃশ্য পরে যোগ করতে হয়েছে তাদের।’ তবে পরাগের সঙ্গে আগে আলাপ না থাকায় তিনি যে বেশ অস্বস্তিতে পড়েছিলেন সে কথা স্বীকার করে নিয়েছেন রেনে। ‘মনে মনে ভাবছি, ভগবান কী হবে এবার। পরাগ এমনিতে খুব ভাল ছেলে… কিন্তু তা-ও। আমাদের শুটিং শুরু হল…একটা দৃশ্য ছিল চুম্বনের…আমি ফিসফিস করে ওর কানে বলছি পরাগ আমি জানিনা কী করছি…হেল্প মি…ও দিকে আমার পরিচালক চিৎকার করে যাচ্ছে, ‘রেনে ফিসফিস কর না। ক্যামেরা কিন্তু অন আছে।’ এক যৌনপল্লির না দেখা জীবন নিয়েই সিরিজটি। রেনের চরিত্রটি একজন যৌনকর্মীর। জীবনের প্রথম ওয়েব সিরিজ নিয়ে আপাতত বেশ উত্তেজিত অভিনেত্রী।

মন্তব্য

মন্তব্য