কালীগঞ্জে বজ্রপাতের কারণে নিহত হয়েছেন ১ জন

মোঃইব্রাহীম খন্দকার,সিনিয়র রিপোর্টার //
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে কালীগঞ্জের মানুষ এখন ভয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। এই পরিস্থিতির মধ্যে কালীগঞ্জে বজ্রপাতে একজন নিহত হওয়ার সংবাদ পাওয়া গেছে।
ঘটনাটি ঘটেছে ১৩ই মে বুধবার কালীগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরসাদী ইউনিয়নের ০৭ নং ওয়ার্ডের ঈশ্বরপুর গ্রামে, আনুমানিক বিকাল  ৩.৩০ মিনিটের দিকে।
এ সম্পর্কে নিহতের প্রতিবেশী মোঃ বুরুজ মিয়া, হেদায়েতুল ইসলাম হেদায়েত ও জহিরুল ইসলামের সাথে কথা বলে জানা যায়, নিহতের নাম মোঃ রাকিব মিয়া, বয়স আনুমানিক ১৫ বছর। নিহতের পিতা মোঃ ফরহাদ মিয়া। নিহত রাকিব, ফরহাদ মিয়ার ৩ ছেলে মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন। সে জামালপুর আর.এম বিদ্যাপীঠ হাই স্কুলের ৯ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করতেন। নিহতের পিতা গত দেড় বছর যাবৎ মালশিয়াতে আছেন।
বুধবার বিকাল আনুমানিক ৩.৩০ মিনিটের সময় নিহত রাকিব তাদের বাড়ির আঙ্গিনাতে ছিলেন। এসময় রাকিব আচমকা বজ্রপাতের শিকার হয়েছেন। সাথে সাথে  নিহতের পরিবার ও আশেপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে, জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক থানা পুলিশকে ঘটনা সম্পর্কে অবহিত করতে চাইলে, নিহতের পরিবারের শত অনুনয় বিনয়ের কারণে তখনই নিহতের পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করে দেন।
নিহতের পরিবার লাশ বাড়িতে নিয়ে আসলে, লোকমুখে শুনতে পায়, বজ্রপাতের ভিকট আওয়াজে অনেক সময় মানুষ সেন্সলেস অবস্থায় স্তব্দ হয়ে যায়। এসময় তার কানের কাছে দীর্ঘ সময় ঢোলের বাজনার আওয়াজ করলে আবার সুস্থ্য হয়ে উঠে।
তাৎক্ষণিক যেই কথা সেই কাজ। সন্ধ্যা থেকে আনুমানিক রাত ১ টা পর্যন্ত নিহত রাকিবের লাশের পাশে, এই ঢোলের বাজনার আওয়াজ চলতে থাকে। এতো সময় চেষ্টা করেও যখন কোন আশার আলো দেখা যায়নি, তখন নিহতের পরিবার বাস্তব নির্মম সত্যটাকে মেনে নিতে বাধ্য হয়।
নিহত রাকিবের পরিবার, আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশীদের সর্ব সম্মতিতে ১৪ই মে বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় জানাযা নামাজের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। জানাযা শেষে নিহত রাকিবকে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে।
এতো অল্প বয়সে নিহত রাকিবের এই মর্মান্তিক মৃত্যুতে, নিহতের পরিবার সহ পুরো এলাকা জুড়ে শোকের মাতাম বইছে।

মন্তব্য

মন্তব্য