কালীগঞ্জে দুটি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ১১ জন

মোঃইব্রাহীম খন্দকার,সিনিয়র রিপোর্টার //   
কোভিড-১৯ এর সংক্রমণে সারা দেশের ন্যায় কালীগঞ্জের মানুষও এখন অজানা ভয়ে আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন। এরই মধ্যে কালীগঞ্জে এক ভয়াবহ সড়ক দূর্ঘটনা ঘটেছে। ১৩ই মে বুধবার বিকাল আনুমানিক ৪ টার দিকে উপজেলার পিপুলিয়া এলাকায় দূর্ঘটনাটি ঘটেছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, যে দুটি ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে তার একটি হাইড্রোলিক ড্রামট্রাক ও অপরটি ১৬১৩ সি মডেলের টিছি ট্রাক। ড্রামট্রাকের নাম্বার (ঢাকা মেট্রো-ট, ১৫-২১৪৮) এবং টিছি ট্রাকের নাম্বার (ঢাকা মেট্রো-ট, ১৫-৪৬৮৬)। দুটি ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষ হওয়ার ফলে, উভয় ট্রাকের চালক ও হ্যালপার ৪ জন এবং ১টি ইজিবাইকের চালক ও যাত্রী সহ ৭ জন নিয়ে, মোট ১১ জন আহত হয়েছেন। পাশাপাশি দুটি ট্রাকেরই সামনের দিকে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, মাল বোঝাই ড্রামট্রাকটি পিপুলিয়া যাত্রী ছাউনির সামনে একটি ইজিবাইক ওভারট্রেক করে পূবাইলের দিকে যাচ্ছিলো। এমন সময় পূবাইলের দিক হতে দ্রুতগতিতে আসা আরেকটি খালি ট্রাক, পূবাইল ব্রিজ থেকে নামার সময় তার সামনে থাকা ট্রাকটি ওভারট্রেক করতে ডান দিকে টার্ন নিলে, অতিরিক্ত গতি থাকার কারণে বাম দিকে টার্ন নিয়ে না উঠতে পারায়, ডানে থাকা ড্রামট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে।
চোখের সামনে এমন ভয়াবহ দূর্ঘটনা দেখে, পিছনে থাকা ৬ জন যাত্রী সহ ইজিবাইকের চালক, তার গাড়ি নিয়ত্রন না করতে পারায় বাম দিকে খাদে পরে যায়। এতে দুটি ট্রাকের চালক ও হ্যালপার এবং ইজিবাইকের চালক ও যাত্রী সহ ১১ জন আহত হয়েছে। স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাদেরকে উদ্ধার করে আশেপাশের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাদের মধ্যে ড্রামট্রাকের চালকের অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখা গেছে।
ঘটনাস্থলে আসা, রাস্তার টহলে ডিউটিরত কালীগঞ্জ থানার এএসআই আসাদুর রহমান বলেন, আমি রাস্তার টহলে ডিউটিতে থাকাবস্থায় মোবাইলের মাধ্যমে ঘটনাস্থল থেকে সড়ক দূর্ঘনাটি সম্পর্কে অবগত করলে, তাৎক্ষণিক আমি সেখানে পৌঁছাই। রাস্তার উপর ২ টি ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষ হওয়ার ফলে, কালীগঞ্জ থেকে টঙ্গীগামী রাস্তাটিতে প্রায় ২ ঘন্টার মতো যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। কালীগঞ্জ থানায় রেকার না থাকায়, নরসিংদীতে রেকারের জন্য কথা বলা হয়েছে। রেকার আসতে দেরী হওয়ায় রাস্তা পুরো বন্ধ হয়ে আছে।
এমন পরিস্থিতিতে গ্রামবাংলা নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের কালীগঞ্জ প্রতিনিধি, ঘটনাস্থলের আশেপাশে থাকা তার পরিচিত দুটি গাড়ির মাধ্যমে, আমাদের সহযোগিতায় প্রায় ঘন্টা খানেক চেষ্টার পরে, টিছি ট্রাকটি বাম দিকে চাপাতে সক্ষম হলে, আস্তে আস্তে গাড়ি চলাচল শুরু করে। রাতের বেলা নরসিংদী থেকে রেকার আসার পর, ২ টি ট্রাকই রেকার করে কালীগঞ্জ থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।
এ সম্পর্কে ড্রামট্রাকের মালিক আবুল কাশেম বলেন, আমার গাড়িটি মাল বোঝাই করে গাজীপুর যাচ্ছিলো। যাওয়ার পথে পিপুলিয়া এলাকায় সামনের দিক থেকে আসা আরেকটি ট্রাক মুখোমুখি আমার গাড়িতে আঘাত করে। এতে আমার গাড়ির চালক, গাড়ির ক্যাবিন ও সুয়ের চাপায় পরে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায়, আমার গাড়ির সু আরেক গাড়ির চ্যাছিজের সাথে বেধে, ক্যাবিন ফাঁকা করে চালককে বাহিরে বের করা হয়েছে। তাৎক্ষণিক তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায়, উত্তরা আর.এম.সি হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর হ্যালপারক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। রাত ৯ টার দিকে রেকারের মাধ্যমে ২ টি গাড়িই কালীগঞ্জ থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।
নিউজ লেখা পর্যন্ত টিছি ট্রাকের (ঢাকা মেট্রো-ট, ১৫-৪৬৮৬) মালিকের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি বলে, ওনার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

মন্তব্য

মন্তব্য