বান্দরবানের লামা উপজেলায় ৩য় করোনা রোগী সনাক্ত।

 

ডেভিড সাহা,পার্বত্য চট্টগ্রাম :

বান্দরবানের লামা উপজেলায় ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের গয়ালমারা এলাকায় আজ আরো ১ জন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাড়ালো ৩ জন। সোমবার (১১ মে’২০) বান্দরবান জেলা সিভিল সার্জন ডা. অং সুইপ্রু মার্মা বিষয়টি নিশ্চিত করে।
আক্রান্ত রোগী সাদেকুল ইসলাম (১৮) ফাঁসিয়াখালী ইউপির ৩নং ওয়ার্ড গয়ালমারা এলাকার মৃত মোস্তাক আহম্মদের ছেলে।
সূত্রে জানা গেছে, নতুন সনাক্ত রোগী সাদেকুল ইসলাম (১৮) গত ৯ মে ঢাকা বিভাগের নরসিংদী জেলায় ১৪ দিন তাবলিগ জামাতে সফর শেষ করে তার নিজ বাড়ীতে আসেন। সাথ সাথে খবর পেয়ে লামা উপজেলা প্রশাসন তাকে হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করেন। এবং ঐদিন দুপুর ২টা নাগাদ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রন) ডা. মনিরুজ্জামান মোহাম্মদ এর নের্তৃত্বে একটি মেডিকেল টিম আক্রান্ত রোগীসহ সন্দেহজনক পার্শ্ববর্তী ১৪ জন ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে সিভিল সার্জন কার্যালয়, বান্দরবান পার্বত্য জেলা মহোদয়ের মাধ্যমে আইইডিসিআর, ফিল্ড ল্যাবরেটরি, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ, কক্সবাজারে প্রেরণ করা হলে আজ ১১ মে ১৪ জনের নমুনায় ১৩জন নেগেটিভ এবং সাদিকুল ইসলাম (১৮) নামে ব্যক্তির নমুনা করোনা পজেটিভ রিপোর্ট পাওয়া যায়।
এদিকে, রিপোর্ট পাওয়া মাত্র স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মীর মাধ্যমে তাহার খোজখবর নেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদুল হক।
এ বিষয়ে তিনি বলেন, আক্রান্ত রোগীর আপাতত কোন উপসর্গ না থাকায় তাহার নিজ বাড়ীতে হোম আইসোলেশনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়ছে। বর্তমানে তিনি শারিরিকভাবে সুস্থ আছেন। যে কোনধরনের উপসর্গ দেখা দিলে হাসপাতালের আইসোলেশনে ইউনিটে এনে তাহার সর্বোচ্চ চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা হবে। একই সাথে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর মেডিকেল অফিসার (রোগনিয়ন্ত্রন) ডা. মনিরুজ্জামান মোহাম্মদকে সার্বক্ষনিক তাহার স্বাস্থ্য বিষয়ক খোজখবর রাখার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।
প্রসঙ্গত, বান্দরবান লামা উপজেলায় এই পর্যন্ত তিন জন করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে, তার মধ্যে সদর ইউপির প্রথম করোনা রোগী রাশেদা বেগম (৩২) সুস্থ হয়ে গত ৯ মে বাড়ি ফিরে যায়।

মন্তব্য

মন্তব্য