গাজীপুরে মুক্তিপণের দাবীতে শিশু অপহরণ, অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার,গ্রেফতার ১

সাইফুল আলম সুমন,নিজস্ব প্রতিবেদক:
গাজীপুরে মুক্তিপণের দাবীতে অপহরণের ৩ দিন পর তালাবদ্ধ ঝুটের একটি গোডাউনে লুকিয়ে রাখা পলিথিনের বস্তা থেকে এক শিশু আলিফ হোসেনের (৫) অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে র‌্যাব-১ গাজীপুরের পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের সদস্যরা। শনিবার রাত সাড়ে ৯টায় মহানগরের পূবাইল এলাকা থেকে এঘটনার মূল হোতা গার্মেন্টস কর্মী সাগরকে (১৯) আটক করা হয়েছে। আটককৃতের কাছ থেকে একটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। রবিবার বিকেলে র‌্যাব-১ পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিহতের আলিফ হোসেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কোনাবাড়ীর পারিজাত আমতলা এলাকার ফরহাদ হোসেনের ছেলে।

আটক কৃত সাগর নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার পদিপাড়া এলাকার রফিক উল্লাহর ছেলে।

র‌্যাব-১ পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, গাজীপুর মহানগরীর কোনাবাড়ী পারিজাত এলাকার ফরহাদ হোসেনের শিশু সন্তান আলিফ হোসেন গত ২৯ এপ্রিল বিকেল ৪টার দিকে নিজেদের বাসা থেকে নিখোঁজ হয়। স্বজনরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে তার সন্ধান না পেয়ে কোনাবাড়ী থানায় সাধারণ ডায়েরী (জিডি) করেন। নিখোঁজের পরদিন ভিকটিমের বাবার মোবাইল ফোনে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা শিশু আলিফকে অপহরণের কথা জানিয়ে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে খুন ও গুম করার হুমকি দেয়। শিশু সন্তানের হদিস না পেয়ে তার পরিবার র‌্যাব-১’র সাহায্য কামনা করে। এর প্রেক্ষিতে র‌্যাব সদস্যরা আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তদন্ত শুরু করে। শনিবার রাতে মুক্তিপনের টাকা নিতে অপহরণকারীরা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের পূবাইল রেললাইন এলাকায় অবস্থান করছে। খবর পেয়ে র‌্যাব সদস্যরা ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা সাগরকে আটক করে। এসময় তার কাছ থেকে ১টি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে কোনাবাড়ী এলাকায় তাদের ভাড়াকৃত তিন তলা ফ্ল্যাটের একটি ঝুটের গুদামে লুকিয়ে রাখা প্লাষ্টিকের বস্তার ভিতর থেকে আলিফের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়। ভিকটিমের বাড়ির তিন তলার ভাড়া বাসায় থেকে সাগর স্থানীয় পোশাক কারখানা চাকুরি করতো।

র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আটক সাগর জানায়, গ্রেফতারকৃত সাগর তার তিন বন্ধু মিলে প্রায় ৬ মাস যাবৎ ভিকটিমদের বাড়ির তিন তলার ফ্লাটের ভাড়া বাসায় থেকে গার্মেন্টসে চাকুরী করে আসছে। উচ্ছৃঙ্খল জীবনযাপন করায় ও ভবনের ছাদে উঠে মেয়েদের উত্যাক্ত করার কারণে সপ্তাহ খানেক আগে রুমমেট জুয়েল আহমেদ ও সবুজকে কয়েকটি চড়-থাপ্পর দেন বাড়ির মালিক আলিফের বাবা ফরহাদ। এতে ক্ষুব্ধ হয় সাগর ও তার বন্ধুরা। এ থাপ্পরকে কেন্দ্রে করে ও দ্রুত ধনী হওয়ার স্বপ্ন দেখে তারা। ওই থাপ্পরের প্রতিশোধ নিতে জুয়েল বুধবার বিকেলে আলিফকে কৌশলে খেলার প্রলোভন দেখিয়ে বাড়ির ছাদে নিয়ে যায়। সেখানে আলিফকে গলাটিপে ও শ্বাসরোধে হত্যা করে সাগর ও জুয়েল। পরে সাগার ও জুয়েল নিহত শিশুর লাশ একটি প্লাষ্টিকের বস্তায় ভরে একই ভবনে তাদের ভাড়া বাসার পাশের ঝুটের গুদামের ভিতর লুকিয়ে রাখে। তারা বাসায় রাত্রি যাপন করে পরদিন সকালে বাসা থেকে পালিয়ে যায়। পরে তারা বিভিন্ন মোবাইল ফোন ব্যবহার করে ভিকটিমের বাবার মোবাইলে ফোন করে অপহরণের কথা বলে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপন দাবী করে।

র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃত সাগর আরো জানায়, এ অপহরণ ও হত্যাকান্ডের মূল পরিকল্পনাকারী জুয়েল আহমেদ ওরফে সবুজ। সে একজন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী। এই অপহরণ ও হত্যাকান্ডের মাধ্যেমে সে নিজেকে শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার পরিকল্পনা করেছিল। এব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

মন্তব্য

মন্তব্য