কলাপাড়ায় কর্মহীন ক্ষুধার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ালেন পুলিশ সদস্যরা

 
এস.এম ইলিয়াস জাবেদ,কলাপাড়া।।
পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় করোনা পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পরা হতদরিদ্রদের পাশে দাঁড়িয়েছে দুই পুলিশ সদস্য। শুধু নিরাপত্তা নয়, মাঠে থেকে সচেতনাতা বৃদ্ধি ও কর্মহীন ক্ষুদার্থ মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন কলাপাড়া থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক সম্মিত রায় ও সহকারী উপ-পুলিশ পরিদর্শক সঞ্জয় দাস।
তবে কোন কিছুর প্রাপ্তির আসায় নয়, শুধু মানুষের অসহায়ত্বের দিক বিবেচনা করেই মানবিক দ্বায়িত্ববোধ থেকে এ উদ্যোগ নিয়েছেন বলে তারা জানিয়েছেন।
জানা গেছে, প্রত্যেক পরিবারেকে ১০ কেজি চাল, দুই কেজি আলু, এক কেজি মুশরী ডাল, এক কেজি আটা, এক কেজি সয়াবিন তৈল, এক কেজি লবন, একটি করে সাবান দেয়া হয়েছে।
শুধু দিনের আলোতে নয়, রাতের আধাঁরেও বাড়ি বাড়ি গিয়ে শতাধিক কর্মহীন মানুষের হাতে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তা। এক সপ্তাহ ধরে কাজের ফাঁকে ফাঁকে তারা এ খাদ্য সহায়তা দিয়ে আসছেন। পুলিশ সদস্যদের এমন মানবিক আচরণ দেখে অনেকেই অবাক।
নানা সমালোচনা,উপহাস,বিদ্রুপ,কটাক্ষ আর কত কিছুইনা সহ্য করতে হয় পুলিশকে। সেই পুলিশ সদস্যরা নিজের বেতনের টাকা দিয়ে খাদ্য সামগ্রী কিনে পৌঁছে দিচ্ছেন কর্মহীন হতদরিদ্রদের বাড়িতে। যেখানে নিজেদেরই থেকে যায় পর্যাপ্ত সুরক্ষা সামগ্রহীর অভাব। নিম্নবিত্ত কর্মহীন মানুষের আহার নিয়ে উদ্বিগ্ন যখন অনেকেই।
তখন পুলিশের কানে ভেসে আসে মধ্যবিত্ব ও কর্মহীনদের বোবা কান্না। খাবার পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব নেয় পুলিশই। এ এক নিদারুন অসহাত্বের গল্প। একাকিত্বের আখ্যান। জীবনে এমন দিন আসবে কে ভেবেছে কবে।
কলাপাড়া থানার সহকারী উপ-পুলিশ পরিদর্শক সঞ্জয় দাস জানান, নিজেদের বেতনের টাকা দিয়ে খাদ্য সামগ্রী কিনে ওইসব কর্মহীন পরিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছি। আমাদের এ কার্যক্রম অব্যহত থাকবে। তবে এ সংকটময় মুহুর্তে সমাজের বিত্ত্ববান ব্যক্তিদেরও ক্ষুধার্থ মানুষের পাশে এসে দাড়ানোর অনুরোধ করেছেন তিনি।
কলাপাড়া থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক সম্বিত রায় জানান, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নির্দেশে আমরা করোনা পরিস্থিতিতে কর্মহীন অসহায় মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করছি।

মন্তব্য

মন্তব্য