লকডউন তারপরও গাইবান্ধায় প্রতিদিন বেড়েই চলেছে হোম কোয়ারেন্টাইন

রওশন হাবিব,গাইবান্ধ প্রতিনিধি //
গাইবান্ধায় গত ২৪ ঘন্টায় মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) নতুন করে হোম কোয়ারেন্টাইনে যুক্ত হওয়া ১২৬ জন সহ বর্তমানে হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন ১ হাজার ৯৬৫ জন। এরমধ্যে সুন্দরগঞ্জে ৪৮, গোব্দিন্দগঞ্জে ৩১৮, সদরে ৩৩১, ফুলছড়িতে ৪১৭, সাঘাটায় ৫২১, পলাশবাড়িতে ২৬, সাদুল্লাপুর উপজেলায় ৩০৪ জন। নমুনা পরীক্ষার ফলাফল না জানা পর্যন্ত তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। কোয়ারেন্টিন শেষে এ পর্যন্ত ছাড় পত্র পেয়েছেন মোট ৩৪৫ জন। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে যুক্ত হওয়া ২৫ জনসহ বর্তমানে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছেন ১০৪ জন। আইসোলেশনে আছেন ১০ জন। এ পর্যন্ত জেলায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ জন।
এছাড়া গত ১ মার্চ থেকে বিদেশ প্রত্যাগত রয়েছেন ৯শ’ ২৯ জন। এরমধ্যে বিদেশ প্রত্যাগত ব্যক্তি ৪৪৪ জনের ঠিকানা ও অবস্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। অবশিষ্ট ৪৮৫ জন বিদেশ প্রত্যাগত ব্যক্তির অবস্থান এখনও চিহ্নিত করতে পারেননি সংশিলিষ্টরা। গাইবান্ধা সিভিল সার্জন অফিসের করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত কন্ট্রোল রুম থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। এদিকে গাইবান্ধায় বোরো ধান পরিপক্ক হওয়ার বেশ আগেই ময়মনসিংহ, গাজীপুর, কুমিল্লা, সিলেট অ লসহ দেশের অনেক এলাকায় বোরো ধান পরিপক্ক হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে হাওড় এলাকায় ধান আগে পাকে। তাই প্রতি বছরই এ সময় গাইবান্ধা থেকে প্রায় ২০/২৫ হাজার কৃষি শ্রমিক ধান কাটতে যায় ওই সব এলাকায়। ধান কাটা শেষ হলে আবার গাইবান্ধায় ফিরে এসে ধান কাটে।
মহাদুর্যোগ করোনার সামাজিক সংক্রমণরোধে ঘোষিত লকডাউনে কৃষি শ্রমিকদের অবাধ যাতায়াত বাধাগ্রস্ত হয়। ঠিক এমন পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা বাস্তবায়নে গাইবান্ধা জেলা প্রশাসন ও কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের বিশেষ ব্যবস্থাপনায় কৃষি উৎপাদন সচল রাখতে উৎপাদিত ধান কাটা ও মাড়াই কাজের জন্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন করোনায় তারুণ্যের সহযোগিতায় মঙ্গলবার কৃষি শ্রমিকের ৪৩ জনের একটি দলকে গাইবান্ধা থেকে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় পাঠানো হয়। অপরদিকে গাইবান্ধার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের সহযোগিতায় জেলা পুলিশের উদ্যোগে কৃষি শ্রমিকের ১১ জনের আরও একটি দলকে বিশেষ ব্যবস্থায় গাজীপুরে পাঠানো হয়েছে।
এর আগে কৃষি শ্রমিকদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয় এবং করোনা পরিস্থিতি নিয়ে শ্রমিকদেরকে স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক নির্দেশনা দেয়া হয়। এছাড়াও শ্রমিকদের মধ্যে দুইটি করে উন্নতমানের মাস্ক ও হ্যান্ডওয়াশ বিতরণ করা হয়।

মন্তব্য

মন্তব্য