সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বিপ্লব মার্মা ও অত্র এলাকার সচেতন ব্যক্তিদের স্বউদ্যেগে চন্দ্রঘোনা মিশন এলাকা লকডাউন করা হয়েছে।

ডেভিড সাহা //

চন্দ্রঘোনা মিশন এলাকায়  করোনা ভাইরাস সংক্রামণ থেকে রক্ষা পেতে স্বেচ্ছায় লকডাউন করে দিয়েছে অত্র এলাকার সচেতন বাসিন্দারা। বুধবার বিকেল ৫ টার দিকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে মিশন এলাকার প্রবেশ পথে বাঁশ দিয়ে গেইট আকারে সৃষ্টি করে নোটিশ টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়েছে। তাতে লেখা রয়েছে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধি ও সংবাদকর্মী ছাড়া বহিরাগতদের মিশন এলাকায়  প্রবেশ নিষেধ । জানা গেছে, এ সমস্ত এলাকা  কারো শরীরে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা না গেলেও আগাম সতর্কতা হিসেবে এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
এলাকাবাসীরা জানান, বর্তমানে দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এতে মহামারী আকার ধারন করতে ও পারে। তাই আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে।তাই করোনা মহামারী থেকে নিজেদের রক্ষার স্বার্থে তারা স্বেচ্ছায়  লকডাউন করে দিয়েছে। এতে করে এই এলাকার  বাইরে থেকে কেউ প্রবেশ করতে পারছে না। আর এখানকার বাসিন্দারাও একান্ত প্রয়োজন ছাড়া এলাকার বাইরে যাচ্ছেন না।অত্র এলাকার সাবেক চেয়ারম্যান বিপ্লব মার্মা জানান, ‘করোনা সতর্কতায় চন্দ্র ঘোনা মিশন এলাকায়  বহিরাগতদের প্রবেশ ঠেকাতে এলাকা বাসিন্দারা যে উদ্যোগ নিয়েছেন তা নিঃসন্দেহে অনেক ভালো কাজ। এটি দেখে অন্যরাও অনেক সচেতন ও উদ্বুদ্ধ হয়েছেন।
এ বিষয়ে কাপ্তাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: নাছির উদ্দিন  জানান, করোনা রোগী সনাক্ত না হওয়ায় কোন গ্রামকে লকডাউন ঘোষনা করা হয়নি। তবে মানুষকে ঘরমূখো করতে অনেক চেষ্টা করে যাচ্ছি।এমতাবস্থায় জনগন স্বেচ্ছায় লকডাউন পালন করছে । এতে করোনার ঝুঁকি অনেকটা কমে আসতে পারে । এ জন্য তাদের এ কাজকে বাধা ও দিচ্ছি না।স্হানীয় সুত্রে জানাযায় যে এলাকার বাসীর নিরাপত্তার কারণে স্বউদ্যেগে সাবেক চেয়ারম্যান বিপ্লব মার্মা ও অত্র এলাকার স্হানীয় গনমান্য ব্যক্তির সহযোগিতা নিজেরাই সুন্দর উদ্যোগ নেওয়া হইছে গত মাসের ২৫/৩/২০২০ইঃ তারিখ থেকে এবং অত্র এলাকার স্হানীয় লোকজন এই উদ্যেগকে সাধুবাদ জানান।

মন্তব্য

মন্তব্য