জীবন যুদ্ধে হার না মানা এই গার্মেন্টস শ্রমিকরা পায়ে হেঁটেই রাজধানীর উদ্দেশ্যে রওনা দেয়

মো.হারুন অর রশিদ //

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে গত ২৭ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল (শনিবার) পর্যন্ত দেশের তৈরি পোশাক কারখানার অধিকাংশই বন্ধ ছিল। দীর্ঘদিনের ছুটি থাকায় ওইসব বন্ধ কারখানার শ্রমিকদের বিরাট একটা অংশ গ্রামে চলে যায়। এই সময়কালে গণপরিবহণও বন্ধ রাখা হয়। কিন্তু পরবর্তী সময়ে সরকারের পক্ষ থেকে গণপরিবহন বন্ধ রাখার সময়সীমা আরও বাড়ানো হয়।

এদিকে এ সিদ্ধান্তের ফলে বিপত্তিতে পড়ে ছুটিতে বাড়ি চলে যাওয়া গার্মেন্ট কর্মীরা। কেননা গণপরিবহন বন্ধের সময়সীমা বাড়ানো হলেও, তাদের ছুটি বাড়েনি। হিসেব মতে ৫ এপ্রিল (রোববার) কর্মস্থলে যোগ দিতে হবে তাদের। ফলে উপায় না পেয়ে ‘লক ডাউনের’ মধ্যে দল বেঁধে পায়ে হেঁটেই রাজধানীর উদ্দেশ্যে রওনা দেয় তারা।

কিন্তু, দেশ যখন করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হুমকির মুখে তখন এ ধরনের জনস্রোত বড় বিপদের কারণ হতে পারে। ফলে এর সমালোচনায় দেশব্যাপী মুখর হয়ে ওঠে মানুষ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে বইতে শুরু করে সমালোচনার ঝড়। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, এ ধরনের গণজমায়েত বড় বিপদের কারণ হতে পারে।

সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম এর ফেইসবুক পোস্টটি নিম্নে তুলে ধরা হলো।-

জীবন যুদ্ধে হার না মানা এই গার্মেন্টস শ্রমিকরা গতকাল ৪ এপ্রিল চাকরিতে যোগদানের উদ্দেশে পায়ে হেটে ঢাকায় আসেন। বোনটি দীর্ঘ পথ হাটতে পারছিলেননা। তাই তাকে কাধে নিয়েই পথচলা। উদ্দেশ্য একটাই চাকরি টিকিয়ে রাখা।

মন্তব্য

মন্তব্য