লে:কর্ণেল(অব:)ফোরকান আহাম্মদের কাজে সুবিধাবাদীরা বাঁধা দিচ্ছে

আবদুল মোমেন //
কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লে.কর্ণেল (অবঃ) ফোরকান আহমদ এলডিএমসি,পিএসসি বলেছেন,পর্যটন নগরী খ্যাত কক্সবাজারকে সাজাতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার খুবই ইচ্ছে।আর এই ইচ্ছে পূরনের কার্যক্রম বাস্তবায়নে আমি একজন বাহক হতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি।

ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শতকোটি টাকার বাজেটের অনেক মেগা প্রকল্প ঘোষণা করেছেন যা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এমনি একটি দায়িত্বের জন্য আমাকে বিশ্বাস করে যে দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে তা আমি কোন ভাবে ত্রুটিপূর্ণ হতে দেবোনা।যতো বাধা বিপত্তি আসুক তা উপেক্ষা করে কাজ বাস্তবায়ন করার জন্য আমি সঠিক গন্তব্যে পৌঁছাব অবশ্যয়।

কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষের দায়িত্ব নেয়ার পর আমার নিয়ন্ত্রণাধীন বিষয়ে গত সাড়ে তিন বছরে কাউকে একটা অবৈধ কাজ করার সুযোগ আমি দিই নাই।সঠিক নীতি নৈতিকতার এমন কুটোর অবস্থানের দরুন রাজনৈতিক প্রশাসনিকসহ তিন স্থরের সুবিধাবাদী লোকজন আমার প্রতিটি কাজে বাঁধা হতে চেষ্টা করেছে। তিনি বলেন,আমাকে অনেকে পুঁড়িয়ে দিয়েছে,গালি দেয় তবে ওই নগরীর উন্নয়নের লক্ষ্যে আমি পৌঁছাবোই।

এবং এতে আমি পিছু হটবো বলে মনে করিনা।আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রীর কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে বাধা সৃষ্টিকারিরা অবশ্যয় সুবিধাবাদী তাই তাদের পিছু হটানো টায় স্বাভাবিক এতে কোন সন্দেহ নেই।শুক্রবার (৩ মার্চ) সকালে ঈদগাঁও ফরিদ আহমদ কলেজের ২০১৮সালের এইচএসসি ব্যাচের পূর্নমিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

কউক চেয়ারম্যান আরও বলেন,উন্নয়নের এই গন্তব্যে পৌঁছাতে,জেলা উপজেলার সবাইকে সঙ্গে নিয়ে কক্সবাজারের উন্নয়নের কাজ করা হবে। শিগগিরই একনেকে পাস হওয়া ২৫৮ কোটি টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার প্রধান সড়কের কাজ শুরু করা হবে। কক্সবাজারে অনেক কিছু করার আছে যা সম্বনয়ের মাধ্যমে করা হবে।

কউক চেয়ারম্যান আরও বলেন, উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গঠন হবার পর আমি অফিস পাইনি।এখন আস্তে আস্তে সব কিছু হচ্ছে। কক্সবাজারে এরই মধ্যে তিনটি পুকুরের কাজ চলছে,ছোট ছোট কয়েকটি ভাস্কর্য্য নির্মাণ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে এইচএসসি ২০১৮ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছাড়াও সমাজিক রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য

মন্তব্য