রাংগামাটি পার্বত্য জেলায় প্রবেশ মুখে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যটি নির্মিত হোঁক তাঁ কখনো চায়নি একটি  কুচক্রী মহল

ডেভিড সাহা , জেলা প্রতিনিধি: পাবত্য চট্রগ্রাম একমাত্র রাঙ্গামাটি জেলার প্রবেশ পথে নির্মিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যটি পূণগ্য রুপে নির্মিত হোক সেটি চায়না কুচক্রী মহল। জানা যায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের উপ সহকারী প্রকৌশলী জনাব মোঃ এরশাদুল হক মন্ডলকে হত্যার হুমকি ধমকি দিয়েছিলো একটা সময়ে আর এসব করে যখন কোন লাভ হয়নি তখন হতে রাংগামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের এই বাঙ্গালী কর্মকর্তাকে বঁদলি করে এমনকি তাঁর স্থানে একজন পাহাড়ি উপ সহকারী প্রকৌশলী আনতেও ব্যাঁপত অপতৎপরতা চালিয়েছে যা এখনো অব্যাহত রঁয়েছে।

যারা জেএসএস এর দালালী করে এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে বাঙালী কর্মকর্তাদেরকে প্রতিপক্ষ মনে করে তাঁদের বলছি দয়াকরে এসব নিয়ে নোংরামি করবেন না কেননা পার্বত্য চট্টগ্রামে সকল ধর্ম বর্ন জাতির জনসাধারণের শান্তি কল্যান এবং উন্নয়নের স্বার্থে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার সহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বদ্ধপরিকর।

সেজন্যই অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী সকল মানুষের সার্বিক উন্নয়ন ও কল্যানের লক্ষ্যে রাংগামাটি পার্বত্য জেলা আওয়ামীলীগ এর অভিভাবক পার্বত্য চট্টগ্রামের অবিসংবাদিত জননেতা সাবেক সফল প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা দীপংকর তালুকদার এমপি সর্বদাই সকল মানুষের জন্য সমানভাবে কাজ করছে এবং রাংগামাটি পার্বত্য জেলার সর্বস্তরের জনসাধারণ আজ উন্নয়ন অগ্রযাত্রার দৃশ্যমান সুফল ভোঁগ করছেন সমানভাবেই।

এজন্য আমাদের অভিভাবক বাবু দীপংকর তালুকদার এমপি’র বিকল্প নাই।তাই আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএস সবসময়ই আমাদের অভিভাবক পাহাড়ের শান্তির দূঁত সর্বস্তরের জনসাধারণের শেষ আশ্রয়স্থল বাবু দীপংকর তালুকদার এমপি’র বিরুদ্ধে বাঙালী মুসলিম বলেও মিথ্যাচার করে কিন্তু পার্বত্যবাসী জাঁনে যে পাহাড়ি বাঙালি সকলের জন্য দীপংকর তালুকদার একমাত্র আস্থার প্রতীক সুতরাং তিন পার্বত্য জেলার গণমানুষের ঠিকানা বাবু দীপংকর তালুকদার এমপি’র বিকল্প নাই।পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড়ি বাঙালি সকলেই সমান অধিকার নিয়ে শান্তিতে থাঁকবে আর স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠিত করতে অগ্রনীভূমিকা পালন করছেন আমাদের গর্ব ও অহংকার বাবু দীপংকর তালুকদার এমপি’সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি,
দীপংকর তালুকদার এর মূঁলনীতি।’পাহাড়ি বাঙালি একঘর আমরা সবাই দীপংকর।

মন্তব্য

মন্তব্য