বিছানার চাদরে পেঁচানো ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

সাইফুল আলম সুমন,নিজস্ব প্রতিবেদক:
গাজীপুরের শ্রীপুরে বিছানার চাদরে পেঁচানো অবস্থায় এক ব্যবসায়ীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার দিবাগত রাত আড়াইটায় শ্রীপুর পৌরসভার কেওয়া পশ্চিম খন্ড (প্রশিকা মোড়) মজনু মিয়ার ভবন থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত আব্দুর রহমান (৪৫) উপজেলার গাজীপুর গ্রামের নছিম উদ্দিনের ছেলে।

ঢাকার ক্রাইম সিন ইউনিটের পরিদর্শক আমিনুর রহমান খান জানান, নিহতের শরীরে পোকা ধরেছে। গলা অর্ধেকেরও বেশি কাটা। ধারণা করা হচ্ছে, ৮ থেকে ১০ দিন আগে তাকে হত্যা করা হয়।

ভবনের মালিক মজনু মিয়া জানান, ১৪ জানুয়ারি সামিরা নামের একজন নারী তার মাকে নিয়ে তার তিন তলা ভবনের দুই তলার পূর্ব পাশের একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নেন। সঙ্গে সামিরার স্বামীও থাকবে বলে জানান। ভাড়া নেওয়ার পর মা মালতি বেগম ও স্বামী আব্দুর রহমানকে নিয়ে সামিরা আক্তার বসবাস করতে থাকেন। গত ৮ ফেব্রুয়ারি ভাড়া দেওয়ার কথা বলে বাসা তালা দিয়ে বের হন তারা। তারপর থেকে কেউ বাসায় আসেন না। ৮ থেকে ১০ দিন ধরে ঘরের দরজা তালাবদ্ধ থাকায় সন্দেহ হয়। এরমধ্যে ঘর থেকে দুর্গন্ধ বের হতে শুরু করে। পরে শ্রীপুর থানায় খবর দিলে ঢাকার ক্রাইম সিন ইউনিটের পরিদর্শক আমিনুর রহমান খান ও গাজীপুর সিআইডির পরিদর্শক তোফাজ্জল হোসেনের নেতৃত্বে শ্রীপুর থানা পুলিশ ও র‌্যাবের যৌথ একটি টিম ঘটনাস্থলে আসে। তারা দরজার তালা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে। এসময় ঘরের মেঝেতে তোষক, নতুন বস্তা ও বিছানার চাদর দিয়ে পেঁচানো মরদহে দেখতে পাওয়া যায়।

শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আমিনুল ইসলাম জানান, ঘটনার পর থেকে সামিরা আক্তার ও তার মা মালতি বেগম পলাতক রয়েছেন। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী জানান, নিহতের প্রথম ঘরের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (২৫) বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। হত্যার বিষয়টি পুলিশ গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছে। আশা করছি খুব দ্রুতই হত্যাকান্ডের কারণ ও এর সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হবো।

মন্তব্য

মন্তব্য