ময়মনসিংহে পূর্বের শত্রুতার জের ধরে যুবকের রক্ত জখম

ময়মনসিংহ (ত্রিশাল) সংবাদদাতা:ময়মনসিংহের সদর উপজেলায় পূর্বের শত্রুতার জেরে এক যুবকে প্রাণের মারার রক্ত জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। (৩১জানুয়ারী) শুক্রবার বিকালে উপজেলা ভাবখালী ইউনিয়ন চুরখাই বাজার সংলগ্ন পুরাতন ব্রীজ এলাকায় ঘটনা ঘটে। ভাবখালী ইউনিয়ন পণঘাগড়া গ্রামের আঃ মতিন মাস্টারের ছেলে ফরহাদ হোসাইন সাঈদী আহত হয়েছে। আহত ফরহাদের বড় ভাই ফারুক আল হোসাইন ৩১০১২০২০ইং রাতে ময়মনসিংহ সদর কোতোবালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ফারুক আল হোসাইন, উপজেলা ঘাগড়া ইউনিয়ন ভাটি ঘাগড়া গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে সুজন (২৮), আঃ জব্বারের ছেলে ফরহাদ (২৪), মিন্নাতুল ইসলামের ছেলে রুবেল (২৮),ভাবখালী ইউনিয়ন চুরখাই গ্রামের সাজু’র ছেলে সাগর (১৮), অজ্ঞাত’র ছেলে সিয়াম (২০) ও ঘাগড়া ইউনিয়ন ঘাগড়া গ্রামের অজ্ঞাত’র ছেলে সজীব (২৭) সহ অজ্ঞাতনামা আরও ৪৫ জন () উপজেলা সদর জেলা ময়মনসিংহ। নাম ও মামলার বিভিন্ন ধারা সহ উল্লেখ করে বলেন, আমার ছোট ভাই মোঃ ফরহাদ হোসাইন (২৮) সাথে দীর্ঘদিন ধরে টাকা পয়সা নিয়ে বিরোধ হয়ে আসছিলো। ঘটনার দিন বিকেলে অনুমান সাড়ে ৫ টার দিকে সদর উপজেলা থানাধীন ভাবখালী ইউনিয়ন পণঘাগড়া গ্রামের বাড়ি থেকে ময়মনসিংহ শহরের উদ্দেশ্যে রওনা হলে।

অত্র থানাধীন চুরখাই বাজার সংলগ্ন পুরাতন ব্রীজের উপর পৌছানোর সাথে সাথে। পূর্ব থেকে পরিকল্পিতভাবে বেআইনি ভাবে জনতাবদ্ধে হয়ে তাদের হাতে থাকা লোহার রড, ইট, বাশের লাঠিসোঁটা সহ দেশী অস্ত্রে-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পথরোধ করিয়া অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে। তখন আমার ছোট ভাই তাদেরকে অকথ্য ভাষার গালিগালাজ করতে নিষেধ করেন। একপর্যায়ে সুজনের হুকুমে, ফরহাদ ও রুবেল তাদের হাতে থাকা ইট দিয়ে প্রাণে মারার উদ্দেশ্যে নাকে ও মাথার উপরে আঘাত করলে মাথাফেঁটে রক্ত জখম হয়ে যায়।

সাগর ও সিয়াম তাদের হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে হাত, পা সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে অমানবিক রক্ত জখম করেন। সজীব অজ্ঞাতনামা সহ অন্যরা আমার ছোট ভাইয়ের কাছে থেকে নগদ দুই লক্ষ টাকা ও দুইটি মুঠোফোন (স্যামসাং গ্যালাক্সি জে-7 বর্তমান মূল্য পনেরো হাজার টাকা এবং অপু এফ-03+ জহার মূল্য পঁয়ত্রিশ হাজার টাকা) তখন আমার ছোট ভাই ডাকা ডাকি ও চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসেন। উল্লেখিত সকলে ঘটনাস্থল থেকে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময়, আমার ছোট ভাইকে উল্লিখিত সুজন বলেন এ ঘটনা ব্যাপারে কাউকে বলে বা পুলিশ কাছে মুখ-খুলে তোকে দ্বিতীয়বার সুযোগ পেলে প্রাণে মেরে লাশ গুম করে রাখবো। এলাকার লোকজন দেখে যখন পালিয়ে যাই তখন স্থানীয়রা রুবেলকে ধরে ভাবখালী ইউপি’র চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার সোহেল ও মেম্বার শেখ নয়ন মিয়া হাতে তুলে দেন। ও আহত ফরহাদের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ার সদর উপজেলা চুরখাই বগামারি কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে।

কর্তব্যরত ডাক্তার বলেন আপনারা ছোট ভাইকে হাসপাতালে আইসিইউ বিভাগে চিকিৎসা প্রদান করে। পরবর্তীতে আমার ছোট ভাই (২ফেব্রুয়ারী) রবিবার হাসপাতালে ১৬নং ওয়ার্ডে চিকিৎসা দিন আছে। উল্লেখিত নাম অজ্ঞাতনামা বিবাদীরা খুব খারাপ ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক এদের জন্য চুরখাই বাজারে আশেপাশের স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন যৌন হয়রানি ভয়ে অনেক শিক্ষার্থী স্কুল-কলেজে আসতে চাইনা। উল্লেখিত ঘটনাগুলো অনেক সাক্ষী আছে।

কোতোবালী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ মাহমুদুল ইসলাম পিপিএম ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) জানায়, পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছি। অভিযুক্তিরা ঘটনার পর আত্মগোপনে থাকায় তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য

মন্তব্য