গাজীপুর জেলা বিএনপি’র ৬২ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন

সাইফুল আলম সুমন,নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
গাজীপুর জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে প্রতিষ্ঠাতা কোষাধ্যক্ষ ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সাবেক সদস্য গাজীপুরের কালিয়াকৈরের চৌধুরী তানভীর আহমেদ সিদ্দিকীকেও সদস্য করা হয়েছে। তিনি দীর্ঘ এক দশক পর কমিটিতে ঠাঁই পেলেন। সোমবার বিকেলে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুর ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত পত্রে এ কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

তার বড় ছেলে চৌধুরী ইরাদ সিদ্দিকী অভিযোগ করেছিলেন বিএনপি সমর্থন দেয়ার বিনিময়ে খালেদা জিয়া তার কাছে অর্থ চেয়েছিলেন। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে ২০১১ সালে চৌধুরী তানভীর আহমেদ সিদ্দিকীকে বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয়। তিনি গাজীপুর (শ্রীপুর-কালিয়াকৈর) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে দলীয় মনোনায়ন নিয়ে গাজীপুর-১ (কালিয়াকৈর-বাসন) আসনে নির্বাচন করলেও গাজীপুর জেলা বিএনপির এই নতুন কমিটির মাধ্যমে সাংগঠনকিভাবে যুক্ত হলেন।

দলের কেন্দ্রীয় সাংঠনিক সম্পাদক এ কে এম ফজলুল হক মিলনকে আহ্বায়ক এবং কাজী সাইয়েদুল আলম বাবুলকে সদস্য সচিব করে ৬২ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির বাকি সদস্যরা হলেন- মো. হুমায়ুন কবির খান, অধ্যাপক ডা: এস এম রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, ওমর ফারুক শাফিন, পীরজাদা মাওলানা রুহুল আমিন, মোহাম্মদ আজিজুর রহমান পেরা, মাস্টার হুমায়ুন কবির, শাহ রিয়াজুল হান্নান, শাহজাহান ফকির, হেলাল উদ্দিন, আব্দুল মোতালিব, সিরাজ উদ্দিন কাঁইয়া, হুমায়ুন কবীর সরকার, সাখাওয়াত হোসেন সবুজ, আব্দুল কুদ্দুস মোল্লা, করিম বেপারী, মো. খলিলুর রহমান, মো. ফরিদ আহমেদ, মোহাম্মদ মোহসীন উজ্জামান সরকার, মো. রফিকুল ইসলাম, ফজলুল হক নয়ন, মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান বাবলু, অ্যাডভোকেট কাজী খান, মো. মনিরুজ্জামান খান লাভলু, বীর মুক্তিযেদ্ধা ফজলুল হক, সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, কুতুব উদ্দিন, নূরুল ইসলাম সিকদার, মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ শহীদ, ডা: শফিকুল ইসলাম, মোহাম্মদ হোসেন আরমান, মমতাজ উদ্দিন রেনু, খলিলুর রহমান ভিপি ইব্রাহিম, পারভেজ আহমেদ, অ্যাডভোকেট মোস্তফা কামাল, মোহাম্মদ ইজাদুর রহমান মিলন, নাহিন আহমেদ মমতাজী, ব্যারিস্টার ফজলুল করিম মন্ডল জুয়েল, এমদাদুল হক মুসল্লী, আবু তাহের মুসল্লী, ডা: ক্যাপ্টেন (অব:) এম এ সালাম আকন্দ, মোহাম্মদ শাহজাহান চঞ্চল, লুৎফুর রহমান, মোহাম্মদ ইব্রাহিম প্রধান, অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান, খাইরুল কবির মন্ডল আজাদ, কফিল উদ্দিন বেপারী, রিজভী আহমেদ দুলাল, অ্যাডভোকেট সোলেমান মোল্লা, এস এম আবুল কালাম আজাদ, রাশেদুল হক, শেখ মোহাম্মদ রাজ্জাক, মোসা. ফেরদৌসী বেগম, মোসা. ফরিদা জাহান স্বপ্না, সাইজুদ্দিন, খন্দকার জুলফিকার জনি, জয়নাল আবেদীন রিজভী, দেওয়ান মোয়াজ্জেম হোসেন, লিটন চন্দ্র সাহা।

আহবায়ক কমিটির সদস্য এস এম আবুল কালাম আজাদ বলেন, বর্তমান কমিটি আগামী দিনে যেসব ইউনিটের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করবে সেসব কমিটিতে ত্যাগীদের মূল্যায়ন করে প্রবীণ-নবীনদের সমন্বয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির লক্ষ্যে আন্দোলনমুখী সাংগঠনিক কমিটি হবে বলে আশা করছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক নেতাকর্মী জানান, জেলা কমিটিতে একজন যুগ্ন আহবায়ক করায় জেলার বিএনপি নেতা কর্মীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

সদস্য সচিব কাজী সাইয়েদুল আলম বাবুল বলেন, নতুন আহবায়ক কমিটি নিয়ে জেলার বিভিন্ন ইউনিটের সিনিয়র নেতাকর্মীসহ তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বিরূপ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করছে।

আহ্বায়ক এ কে এম ফজলুল হক মিলন বলেন, কমিটিকে আগামী তিন মাসের মধ্যে জেলার সকল ইউনিট কমিটি গঠন করে জেলা কমিটির সম্মেলন করার শর্তে এ আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

মন্তব্য

মন্তব্য