আওয়ামী লীগ এর মনোনয়ন প্রত্যাশী যাত্রাবাড়ী থানা ছাত্রলীগ এর সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক

বিশেষ প্রতিবেদক : শাকিল হোসেন আনন্দ যাত্রাবাড়ী থানা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। ছোট বেলা থেকেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে নিজিকে গড়ে তুলেছেন। ছাত্রজীবনেই আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হয়েছেন। ছাত্র রাজনীতির মধ্য দিয়ে জনগণের কাছে গিয়ে তাদের সুখ, দুঃখ সম্পর্কে জেনেছেন। আসন্ন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ৪৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদের জন্য আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী এই ত্যাগী সদ্য সাবেক ছাত্রলীগ নেতা। জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতি মুক্ত দেশ গঠনের অংশীদার হতে চান এই নেতা। যার জন্য গত ২৭ ডিসেম্বর আওয়ামীলীগ এর মনোনয়ন ও ক্রয় করেন তিনি।
ছাত্র রাজনীতি থেকে সরাসরি জনপ্রতিনিধি হতে চাচ্ছেন কেন এমন এক প্রশ্নের জবাবে উক্ত এই নেতা প্রতিবেদক বলেন-
রাজনীতি করতে গিয়ে সর্বস্তরের জনগণের সঙ্গে আমি মিশেছি। সকল মানুষের দুঃখ, কষ্ট নিজের মত করে দেখেছি। তাদের বিপদে আপদে সব সময় তাদের পাশে থেকে আপনজন হয়ে কাজ করেছি। আমি জনগণের পাশে থেকে তাদের সেবা করতে চাই। জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে এজেন্ডা দিয়েছেন- ‘ক্লিন ইমেজ এবং মানুষের সেবা করা দরকার’ আমার মনে হয় ৪৯ নং ওয়ার্ডে দল যদি আমাকে চিন্তা করে তাহলে আমি দলের হয়ে মানুষের সেবা করতে চাই। আমি মানুষের দারে দারে গিয়েছি। সংগঠনকে দাঁড় করতে তৃণমূল স্তরের সকল নেতা কর্মীর কাছে গিয়েছি। এই লক্ষে মানুষের সেবা করার নিমিত্বে জনগণের পাশে থেকে আপন হয়ে কাজ করার আগ্রহ থেকেই জনপ্রতিনিধি হতে চাই। নেত্রীর এজেন্ডা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বাস্তবায়ন করতে চাই।
আমার পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে- এই ওয়ার্ডকে ক্লিন, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা। আমার ৪৯ নং ওয়ার্ডের জনগণকে নিরাপত্তা দেয়ার জন্য যা যা করা দরকার আমি তাই করবো। নিষ্ঠা আর সততার মাধ্যমে জনগণের সকল মনের আশা পূরণ করতে পারবো বলে ও জানান এই ছাত্রলীগ নেতা।
নিজেকে দলের একজন কর্মী মনে করেই আমি এখানে দায়িত্ব পালন করবো সুতরাং আমার দলের যারা নেতৃবৃন্দ আছেন তাদের সঙ্গে নিয়ে এই ৪৯ নং ওয়ার্ড এমনভাবে গোছাবো যাতে আমার নেত্রী এই ওয়ার্ডেকে একটি সু-সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করে যাতে আমি চলে যাবার পরেও আওয়ামী লীগের কর্মীরাই এগিয়ে নিতে পারে।

মন্তব্য

মন্তব্য