মাছ ধরার জেরে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখমের প্রতিবাদে আশুলিয়ায় স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

বিনয় কৃষ্ণ মন্ডল,আশুলিয়াঃ
রাজধানীর উপ কন্ঠে শিল্পা ল আশুলিয়ায় পৈত্রিক সম্পত্তিতে মাছ ধরার জেরে ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়মীলীগ এর সহ সভাপতি আবু হানিফ গংদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসাী। মানববন্ধনে ওই এলাকার শত শত নারী পুরুষ শাস্তির দাবি স্বম্বলিত প্লাকার্ড বহন করে এতে অংশ নেন। আহতদের মধ্যে একজন সেনা সদস্য আসলাম রয়েছেন তাকে নবীনগর সিএমএইচে ভর্তি করা হয়েছে। গুরুতর আহত আব্বাস উদ্দিন(৬০) কে রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্যে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যান্য আহতদের স্থানীয় সাহারা মডার্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
২২ নভেম্বর শুক্রবার সকালে আশুলিয়ার ধামসোনা ইউপির ২নং ওয়ার্ডের উনাইল এলাকায় এ ঘটনায় আশুলিয়া প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধটি অনুষ্ঠিত হয়।
ঘটনায় আশুলিয়া থানায় মামলা (নং ৭১) হয়েছে এবং এ ঘটনায় সন্ত্রাসী আবু হানিফের সহযোগি সন্ত্রাসী কুদ্দুসসহ ২জনকে আটক করেছে পুলিশ।
গুরুতর আহত আব্বাসের ছেলে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক ডাঃ কায়কোবাদ হোসেন রাসেল জানান, উনাইল এলাকায় তাদের পৈত্রিক সম্পত্তিতে মাছের ঘের রয়েছে। ওই ঘেরে মাছ ধরতে গেলে ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আবু হানিফ, নুরুদ্দিন, আলাউদ্দিন, কুদ্দুস, জিয়া, ফরহাদ ও খোকন সহ প্রায় ৩০/৩৫জন দেশিয় অস্ত্র সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তাদের ওপর হামলা চালায় এবং রামদা দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এতে তার পিতা আব্বাস উদ্দিন, আফাজ উদ্দিন, আসলাম হোসেন, ইমতিয়াজ হোসেন, সোহেল রানা, অসিমুদ্দিন, নুর হাকিমসহ ১০/১২ জন রক্তাক্ত জখম হন। ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে এবং ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এতে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে বিবাদীরা বৈধ সম্পত্তির মালিকদের ভয়-ভীতি, হুমকিসহ ব্যাপক মহড়া ওই এলাকায় দেয় বলেও তিনি অভিযোগ করেন। অবিলম্ভে এসকল চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার পূর্বক শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানান হয় মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারিরা।
জানতে চাইলে আশুলিয়া থানার উপ পরিদর্শক কামরুজ্জামান বলেন, রক্তাক্ত জখমের ঘটনায় ২ জনকে আটক করে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এরপর তাদেরকে ১দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। পাশাপাশি অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারের অভিযান চলছে।

মন্তব্য

মন্তব্য