বাউফলে খোলা আকাশের নিচে চলছে পাঠদান

মো:ফিরোজ,বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি:
ঘ‚র্ণিঝড় বুলবুলের ছোবলে মাদ্রাসার ম‚লভবন পড়ে যাওয়ায় খোলা আকাশের নিচে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম। ফলে ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান ও পাঠগ্রহণ। কয়েক দিনের ব্যবধানে অর্ধেকের চেয়েও কমে গেছে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি। বার্ষিক পরীক্ষার প্রস্তুতিও চলছে খোলা আকাশের নিচে। সংস্কারের সহায়তার জন্য সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করেও এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি কোন সহায়তা। এটি হচ্ছে পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার দাশপাড়া ইউনিয়নের প‚র্ব খেজুরবাড়িয়া দাখিল মাদ্রাসা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া ওই মাদ্রাসাটি এলাকাবাসীর সন্তানদের লেখাপড়া শিখানোর একমাত্র প্রতিষ্ঠান। মাদ্রাসার প্রধান ভবনটি দৈর্ঘ্য ১০৫ ফুট। শিক্ষক মিলনায়তনসহ এবতেদায়ি শিশু শ্রেণি থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত, ৬টি ক্লাসরুম ছিল ওই ভবনে।
এখন ওই সব ক্লাসের ৩৬০ জন শিক্ষার্থীদের ক্লাস নিতে হয় খোলা আকাশের নিচে। গত ১০ই নভেম্বর ভবনটি বুলবুলের ছোবলে ভেঙে পরে। এরপর সংস্কারের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, জেলা শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে লিখিত ভাবে সমস্যার বিষয়টি মাদ্রাসার শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা জানালেও এখন পর্যন্ত কোন সহায়তা না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েছে মাদ্রাসার সংশ্লিষ্টরা। আয়শা বেগম নামে ৯ম শ্রেণির ওই মাদ্রাসার এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘এভাবে খোলা আকাশের নিচে শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ থাকে না। তাই লেখাপড়ার মনোনিবেশ বিঘ্নিত হয়। ভাঙা ভবনের কারণে সামনে পরীক্ষা থাকা সত্তে¡ও অনেকেই আসে না। আমাদের মাদ্রাসাটি দ্রæত সংস্কারের জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা চাই।’ ওই মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রফিকুল ইসলাম হাওলাদার বলেন, ‘আমাদের এলাকার সন্তানদের মাধ্যমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে জরুরি ভিত্তিতে মাদ্রাসাটি সংস্কার করা দরকার। তা না হলে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’ মাদ্রাসা সুপার মাওলানা মো. আব্দুল মতিন বলেন, ‘২৭শে নভেম্বর থেকে মাদ্রাসার বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হবে। এছাড়াও নতুন বছর আসন্ন ভবন ভাঙা থাকলে অনেক শিক্ষার্থীই ভর্তি হতে চাইবে না। ভবনটি সংস্কার জরুরি। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রাজীব বিশ্বাস বলেন, ‘ক্ষতিগ্রস্ত ওই প্রতিষ্ঠানের আবেদন পেয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। খুব শিগগিরই সংস্কারের জন্য পদক্ষেপ নেয়া হবে।

মন্তব্য

মন্তব্য