কুমিল্লার তিতাসে ছেলের অত্যাচারে রহস্যজনকভাবে মায়ের মৃত্যু:আটক১


মো: জহিরুল ইসলাম (পাশা) //
কুমিল্লার তিতাস উপজেলার কড়িকান্দি ইউনিয়নের বন্দরামপুর গ্রামে ছেলের অত্যাচারে রহস্যজনক ভাবে মায়ের মৃত্যু, নিহত লতিফা বেগম (৫৭) আবুল কাশেমের স্ত্রী ও মজিদপুর গ্রামের ছইন উদ্দিনের মেয়ে। উক্ত ঘটনার পর ছেলে মো: শাকিল (৩৭) পলাতক রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ শাকিলের স্ত্রী জিয়াসমিনকে আটক করে থানা হেফাজতে রেখেছে। নিহতের প্রতিবেশি গ্রাম পুলিশ মোসা:বেবী আক্তার জানান প্রায় সময় শাকিল তার মাকে মারধর করে তবে গতকাল আমি বাসায় ছিলাম না বাড়িতে এসে শুনি তার মাকে খুব মার ধর করেছে এবং চুলে ধরে উঠানে টেনে হিচরে মেরেছে মা ভয়ে আমার ঘরে লুকিয়ে ছিল, বিকালে মা ছেলের ভয়ে এক আত্নীয়র বাড়িতে গিয়েছিল আজ সকাল আনুমানিক
সাত ঘটিকার সময় হঠাৎ চিৎকার শুনে দৌড়ে এসে দেখি মা কিটনাশক খেয়েছে তবে মা নিজে খেয়েছে নাকি ছেলে জুরকরে মাকে কিটনাশক খাইয়েছে তা আমি জানিনা। এ দিকে নিহতের ছেলের স্ত্রী মোসা:জিয়াসমিন আক্তার জানান, আমার বিয়ে হয়েছে বারো বছর হয়। আমাদের সংসারে কোন সন্তান নেই। আমার বিয়ের অনেক আগেই আমার শশুড়ের সাথে শাশুড়ির ছাড়াছাড়ি হয়। আমার শাশুড়ি বিভিন্ন জায়গায় কাজ করে ছেলেকে বড় করে। এক পর্যায়ে কুমিল্লার আবুল কাশেম নামে এক লোকের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে আমার শাশুড়ি স্বামীকে নিয়ে দাউদকান্দির পেন্নাইয়ে ভাড়া বাসায় থাকেন। আমার শাশুড়ি কিছু দিন আমাদের এখানে আবার কিছু দিন পেন্নাই স্বামীর সাথে থাকে। এনিয়ে ছেলের সাথে মার অনেকবারই ঝগড়াঝাটি হয়েছে। কাল (সোমবার) শাশুড়ি এখানে আসলে শাকিল তার মাকে দু’দফা মারধর করে। রাতে আমার শাশুড়ি আত্নীয়র বাড়িতে ঘুমায়। সকালে আমাদের এখানে এসে বলে আমি বিষ খেয়েছি। এক পর্যায়ে সে মারা যায়। নিহতের বর্তমান স্বামী: মো: আবুল কাসেম (৬৫)পিতামৃত আব্দুল মালেক গ্রাম :আড়াই উড়া কুমিল্লা সদড় বলেন আমি বিয়ে করেছি প্রায় ২৪ বছর হয়েছে আমার স্রী ও পালক সন্তান শাকিল এর নামে সমান ভাগে ১২ শতক জমি কিনে এখানে বাড়ি করে দেই, তার কয়েক বছর পর শাকিল বাড়িটা নিজের নামে নেওয়ার জন্য তার মাকে মাঝে মধ্যে মারধর করত ছেলের অত্যাচার সয্য করতে না পেরে ৩ শতাংশ বাড়ি দিয়ে দেয় কিছুদিন পৃর্বে ও আমি এবং আমার স্রী শাকিল সুখের জন্য সাড়ে তিন লক্ষ টাকা দিয়ে পাঁচটি গরু কিনে দেই, আমার জানামতে আমার স্রী নিকট ৩ লক্ষ টাকা আছে সে টাকার জন্য শাকিল তার মাকে মারধর করত আর বলত টাকা আর মায়ের নামে বাকি ৩ শতক বাড়ি যেন শাকিল কে দিয়ে দেয়, স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার আবুল কাশেম মুন্সি জানান, শাকিল সোমবার দুপুরে তার মাকে মারধর করলে সে আমার কাছে এসে ছেলের নির্যাতনের কথা বলে অভিযোগ করে। আমি শাকিলকে আমার কাছে পাঠানোর জন্য বলি। শাকিল বিষয়টি ভালোভাবে না নিয়ে আবার তার মাকে মারধর করে। সকালে জানতে পারি শাকিলে মা বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেছে। তিতাস থানার এস আই মধুসুদন সাংবাদিকদের জানান, খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে যাই এবং লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি পরে ময়না তদন্তের জন্য কুমেক মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে সে বিষপানে মৃত্যু হয়েছে,তবে আমরা ঘটনা স্থানে পৌছানোর আগে স্থানিয়রা শাকিলকে পাকরাও করে কিন্তু শাকিল পালিয়ে যায়, নিহতের ছেলে শাকিলকে ধরার জন্য পুলিশের অভিযান চলছে। উল্লেখ শাকিলের জম্নদাতা পিতা মো: শাহ আলম শিশু ধর্ষনের মামলায় কারাবন্দি রয়েছে।

মন্তব্য

মন্তব্য