গলাচিপার বারেক মৃধা আজও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পাননি

মো: নাসির উদ্দিন, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি //
একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে জীবন বাজি রেখে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মুখযুদ্ধে অংশ নেন পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার কলাগাছিয়া গ্রামের মৃত আজাহার মৃধার ছেলে মো. বারেক মৃধা । মুক্তিযুদ্ধকালীন রাইফেল ও গ্রেনেটের প্রশিক্ষণ নেন বিভিন্ন স্থানে। যুদ্ধকালীন কমান্ডার হানিফ সিকদারের অধীনে ৯ নম্বর সেক্টরে সরাসরি পটুয়াখালী জেলার গলাচিপায় মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেন।মো.নুরুল হুদা তখন পটুয়াখালীর ক্যাপ্টেইনের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি তাদের নির্দেশে পানপট্টি ও খেপুপাড়ায় পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধ করেন।সে সময় তার সহযোদ্ধা ছিলেন মো. হানিফ সিকদার, মো. শাহজাহান খান, মো.বাদশাহ সিকদার,মো. বাদল ব্যানার্জী,মো. কাদের সিকদার।
তিনি ৯ নম্বর সেক্টরের ক্যাপ্টইন মাধী আলী ইমামের কাছে অস্ত্র জমা দেন। ২য় পর্যায়ে পটুয়াখালী জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বরাবরে আবেদন করলে বরিশাল বিভাগে তালিকায় তার নাম আসে।কিন্ত এখন পর্যন্তও তিনি মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি স্বরুপ কোন ভাতা পাননি। বর্তমানে তিনি অচল হয়ে বাড়িতে পড়ে আছেন।
মো.বারেক মৃধা বলেন, মরণের আগে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি চাই, আমার অন্য কোনো চাওয়া-পাওয়া নাই সরকারের কাছে।
যুদ্ধকালীন (বিএলএফ) থানা কমান্ডার নুরুল ইসলাম ধলা বলেন, বারেক মৃধা একাত্তরে আমাদের সঙ্গে ট্রেনিং নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি এ বিষয়টি নিয়ে কাজ করবে।
স্থানীয় এমপি এসএম শাহাজাদা বলেন, উপজেলার যাচাই-বাছাই কমিটির সব সদস্যকে নিয়ে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা তৈরি করা হবে।

মন্তব্য

মন্তব্য