“বাঙালির অধিকারের কথা বলায় চাকরি হারালো স্কুল শিক্ষক”

 

ডেভিড সাহা,বান্দরবন।
পার্বত্য অঞ্চলে বাঙ্গালীদের অধিকারের কথা বলায় চাকরি হারিয়েছে বান্দারবান সদর উপজেলার সুয়ালক ইউনিয়নের ভাগ্যকুল কদুখোলা উচ্চ বিদ্যালয় এর ইংরেজি শিক্ষক মোঃ মিজানুর রহমান আকন্দ আজ (২৪আগষ্ঠ)সকাল ১০টায় উক্ত স্কুলে দ্বিতীয় তল উদ্বোধনের সময় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী জনাব বীর বাহাদুর উশৈসিং মহোদয় উদ্বোধন শেষে একটি শ্রেণি কক্ষে প্রবেশ করেন।
ঐ কক্ষে বান্দরবান জেলা পরিষদের বর্তমান সদস্য জনাব মোজাম্মেল হক বাহাদুর সাহেব উপস্থিত থেকে, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সভাপতি হিসাবে স্কুল শিক্ষককে নেতিবাচকভাবে মন্ত্রীমহোদয় এর সামনে উপস্থাপন করেন, তিনি বলেন সব কলকাঠি এবং নাটের গুরু হল এই শিক্ষক এই শিক্ষককে এই স্কুলে চাকরি করতে দেয়া যাবে না। তার কথা শুনে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় সাফ জানিয়ে দেন বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ করলে এই শিক্ষক এখানে চাকরি করতে পারবে না এবং আমি একে এখানে চাকরি করতে দিবোনা এরকম অনেক স্কুলের অনেক জনের এমপিও আমি বন্ধ করে দিয়েছি এটা সাম্প্রদায়িকতা। এসময় আওয়ামি লীগে সকল সিনিয়র জেলা নেতৃবৃন্দ এবং বান্দরবান জেলার বিভিন্ন পত্রিকার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সভাপতি মোঃ মিজানুর রহমান আকন্দ বলেন আমি পাহাড়ে সম্প্রীতি রক্ষার কথা বলি, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কথা বলি গত কিছুদিন আগে আওয়ামী লীগের পৌরসভার নেতা চথোয়ায় মং মারমাকে গুলি করে হত্যা করার ঘটনায় একমাত্র আমি বান্দরবান প্রেসক্লাব চত্বরে মানববন্ধন করেছিলাম এবং বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম, এবং পার্বত্য অঞ্চলে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে সদা প্রতিবাদ করে আসছিলাম, দুঃখের দিনে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলাম, বন্যার্তদের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলাম। আমার কাছে কোন পাহাড়ি-বাঙালি পার্থক্য নেই সবাই আমরা একই রক্তে মাংসে মানুষ। তিনি আরো বলেন চাকরি কোন বিষয় নয় মানুষের অধিকার নিয়ে কথা বলতেছি কথা বলব এবং সত্য সবার সামনে উপস্থাপনের সদা সচেষ্ট থাকবো এর জন্য শুধু চাকরি নয় জীবনও দিতে হতে পারে, নির্দিষ্ট একটা সম্প্রদায় সকল ধরনের সুযোগ-সুবিধা ভোগ করবে বাকিরা বঞ্চিত হবে তা হতে পারে না।
এ বিষয়ে সাধারণ জনগণ বলেন মিজান ভাই আমাদের মধ্যে সম্প্রীতি রক্ষায় কথা বলে সুখে দুঃখে আমাদের পাশে থাকে তার সাথে এমন আচরণ মোটেও কাম্য নয়। আমরা মিজান ভাইয়ের পাশে ছিলাম আছি এবং থাকব এবং পাহাড়ের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সবাই মিজান ভাইয়ের নেতৃত্বে কাজ করে যাব এতে করে কোনরকমে প্রতিবন্ধকতাকে আমরা মানবো না।

মন্তব্য

মন্তব্য