রাজাখালী বকশিয়া ঘোনা মসজিদের জন্য (ওয়াকফ জমি) জবর দখলের পায়তারা

 

জসিম উদ্দিন, ক্রাইম প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম  : কক্সবাজার জেলার পেকুয়া থানাধীন রাজাখালী ইউনিয়নের বকশিয়া ঘোনা এলাকায়  ২৪ শতক জমি বায়তুস সালাম জামে মসজিদের নামে ওয়াকফ মুলে দান করেদেন একুই এলাকার  মৃত হাজি বজল আহমেদের পুত্র মহিবুল্লা ও তার ওয়ারিশ গণ। মসজিদ প্রতিষ্টা হইতে মতুয়ালির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন এতে তিনি আরও একটা নুরানী মাদ্রাসা চালু করে সুনাম ও অত্যন্ত ফরেজগার বক্তি হিসাবে এবং ওয়ার্ড কমিটির বাংলাদেশ আমাওলীগ সভাপতি হিসাবে সুনাম অর্জন    করে আসছিলেন এতে উক্ত পারিবার ও মসজিদের জমিনের উপর কুনজর পরে স্হানীয় প্রভাত শালী বকলম চেয়ারম্যান সৈয়দ নুরের। বিগত ১৪/১৫ বছর থেকে একটি মসজিদ ও নুরানী মাদ্রাসা ও এতিমখানা সুন্দর ভাবে পরিচালনা করে আসিতেছে গত ২১ মার্চ ২০১৯ ইং তারিখ হ্যাঁ করে বাদী হয়ে রমিজ উদ্দিন ৫০ পিতা মৃত আব্দুল হাকিম জন্ম সুত্রে রাজাখালী ইউনিয়নের হলও সে ১০ বছর জাবত তার শশুর বাড়ি সরললিয়া ঘোনা পুইছড়ি বাশঁখালী চট্টগ্রাম অধীনে বসবাস করে আসছিল সে কখনও তার এলাকায় রাজাখালী বসশিয়া ঘোনা যাতায়াত করে না স্থানীয় মসজিদের ইমাম এবং মাদ্রাসা ছাত্র ছাত্রীর কাছ থেকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়  এহেন স্থানীয় ঘর ছাড়া লোক দিয়ে বাদী করে বিজ্ঞ সিনিয়র  জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্টেট এর আদালত চকরিয়া বরাবর এক ফৌজদারি অভিযোগ দায়ের করেন মতুয়ালি গং এর বিরুদ্ধে  এতে দুই লক্ষ টাকা ও আগ্নেয়াস্ত্র দ্বারা ভয় ভিতি কথা উল্লেখ আছে বিজ্ঞ ম্যাজিস্টেট উক্ত আভিযোগ খানা
পিবিআই কক্সবাজার কে আদেশ দেন উক্ত আভিযোগ তদন্তের জন্য। মহিবুউল্লা মনু কে
পিবিআই। তদন্ত অফিসার তদন্ত কাজে কক্সবাজার পিবিআই। অফিসে তলব করলে
১লা এপ্রিল ২০১৯ইং কক্সবাজার পিবিআই।অফিসে অবস্থান করেন।নালিশি জাগায় রমিজ উদ্দিনের আত্যিয়ে সজন কয়েক জন কে আঘাত দেখায় কোন এমসি।ছাড়া একটি মামলা করে ঐ দিন ঐ সময় মহিবউল্লা মনু কক্সবাজার অবস্থান করছিলেন কিভাবে তিনি কক্সবাজার থেকে রাজাখালী এসে একুই দিনে একুই সময় এতবড় ঘটনা ঘটালেন? এই কথা গুলি বিভাগীয় প্রতিনিধি কে  বলতে বলতে তিনি অর্ত নাতে ভেঙ্গে পড়েন।কোন ব্যক্তি গত স্বত্র ছাড়া একটি দুই ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের স্বাত্র রক্ষাতে আজ আমাকে ও আমার পরিবারকে  বিভিন্ন হায়রানীর মুলক মিত্যা মামলা দিয়ে ঘরও দেশ ছাড়া করে সন্ত্রাসের রজত্ব কাইয়ুম করে ঝুলুম ও ভুমি দস্যুদের স্থায়ী ঠিকানা করে দিতে চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছ স্থানীয় সন্ত্রাসী বাহিনী।

মন্তব্য

মন্তব্য