নিউজিল্যান্ডে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শোক ও নিন্দা

অনলাইন ডেস্ক:নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল-নূর ও লিনউড মসজিদে অস্ত্রধারীর এলোপাতাড়ি গুলিতে ৪০ জন নিহতের ঘটনায় গভীর শোক ও নিন্দা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নের কাছে পাঠানো এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী শোক ও নিন্দা প্রকাশ করেন। প্রধানমন্ত্রী অফিসের প্রেস উইং থেকে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর দেড়টায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা অ্যাডার্ন জানান, আল-নূরে ৩০ এবং লিনউড মসজিদে ১০ জন নিহত হয়েছে। দেশজুড়ে নিরাপত্তা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

নিউজিল্যান্ড পুলিশ কমিশনার মাইক বুশ জানান, ‘দুইটি মসজিদে হামলায় বহু হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। নারীসহ চারজনকে আমরা গ্রেফতারও করেছি। যদিও এখনও নিশ্চিত নই যে আরও কেউ হামলায় জড়িত ছিলেন কিনা। এলাকাটিতে কড়াসতর্কতা জারি করা হয়েছে। আমরা স্থানীয় জনগণকে ওই এলাকা ব্যবহার না করার অনুরোধ জানাচ্ছি। এছাড়া, পার্শ্ববর্তী সকল স্কুল বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’হামলার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, তারা হামলাকারীর আধা-স্বয়ংক্রিয় শটগান থেকে ৫০ রাউন্ডেরও বেশি গুলি চালানোর শব্দ শুনতে পেয়েছে।

আজ ক্রাইস্টচার্চের হাগলি ওভালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট খেলতে নামার কথা ছিল সেদেশে অবস্থারকারী বাংলাদেশ ক্রিটেট টিমের। হ্যাগলি ওভালের খুব কাছের একটি মসজিদে আজ শুক্রবার স্থানীয় সময় বেলা দেড়টার দিকে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে।দেশটিতে অবস্থানরত বাংলাদেশি ক্রিকেট খেলোয়াড়রা নিরাপদে আছেন বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানিয়েছেন তারা। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়রা মসজিদটিতে জুমার নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন। খেলোয়াড়রা সেখানে গিয়ে শুনতে পান মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। এরপর দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে নিরাপদে হোটেলে ফিরে যান তারা।তামিম ইকবাল টুইটারে জানান, সবাই এখন নিরাপদে আছেন।মুশফিকুর রহিম তার ফেসবুকে জানিয়েছেন যে হামলার সময় তারা খুবই কাছাকাছি ছিলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা খুবই ভাগ্যবান। সর্বশক্তিমান আল্লাহ আমাদের রক্ষা করেছেন। আবারও এধরনের অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে চাই না। আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

সূত্র:আমাদের সময়.কম

মন্তব্য

মন্তব্য