বাঞ্ছারামপুরে গণপিটুনিতে ২ ডাকাত নিহত, আহত ১


আইয়ুব আলী//

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে ডাকাতি করে পালিয়ে যাওয়ার সময় গ্রামবাসী ২জনকে আটক করে গণপিটুনি দিলে ২জন ডাকাত নিহত হয়েছে। ডাকাতের হামলায় গৃহকর্তা ইয়ামিন মিয়া (৪৫) নামে একজন গুরুতর আহত হয়েছে। নিহত ডাকাতরা হলেন নরসিংদী সদর উপজেলার বিবিরকান্দি গ্রামের মৃত রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে আলামিন (৩২) ও অজ্ঞাত (৩০)। গত বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে উপজেলার চর-শিবপুর গ্রামে এঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে উপজেলার সোনারামপুর ইউনিয়নের চর-শিবপুর গ্রামে গত বুধবার রাত দেড়টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত চার বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটে। চর-শিবপুর উত্তর পাড়ায় চর-শিবপুর-ইছাপুর সড়কের পাশে বাবুল মিয়ার বাড়িতে রাত দেড়টার দিকে বিল্ডিংয়ের গেইটের তালা কেটে ঘরে প্রবেশ করে ঘরের লোকজনকে হাত-পা বেধে নগদ ৪লাখ ৩০হাজার টাকা ৫ভরি স্বর্ণ নিয়ে যায়। এরপরে পাশেরবাড়ি স্বপন মিয়ার ঘরের দরজা ভেঙ্গে ডাকাতরা ঘরে প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত-পা বেধে ঘরে রক্ষিত নগদ ১লাখ টাকা, ৩ভরি স্বর্ণ নিয়ে যায়। একই দল পাশের দুবাই প্রবাসী ওমর আলীর বাড়িতে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে নগদ ১০হাজার টাকা ২ভরি স্বর্ণ নিয়ে যায়। এরপরে পাশের বাড়ির ইয়ামিন মিয়ার বাড়িতে দরজা ধাক্কা দিলে ইয়ামিন মিয়া দরজা খুলে দিলে ডাকাতরা এলাপাথারি কুপিয়ে ইয়ামিন মিয়াকে আহত করেন। তাকে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ইয়ামিন মিয়ার বাড়ির মহিলাদের কাছ থেকে ২ভরি পরিমান স্বর্ণের অলংকার নিয়ে যায় ডাকাতদল। চারবাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় ডাকাত দল নগদ ৫লক্ষ ৪০ হাজার টাকা ও ১০ভরি স্বর্ণসহ প্রায় ১২লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। ডাকাতি শেষে ডাকাতরা চলে যাওয়ার সময় গ্রামবাসী ডাকাতদের ধাওয়া করেন। মসজিদের মাইকে গ্রামে ডাকাত এসেছে ঘোষণা দিলে পাশের আরো দুই গ্রামের লোকজনসহ গ্রামবাসী চারদিক থেকে ডাকাতদলকে ধাওয়া করে ২জনকে আটক করে গণপিটুনি দিলে ঘটনাস্থলে অজ্ঞাত (৩০) নিহত হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় অপর ডাকাত আলামিন (৩২) কে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করলে কিছুক্ষণপর সে মারা যায়।
স্বপন মিয়া জানান,‘‘রাত দুইটার দিকে ডিবি পরিচয় দিয়ে আমার ঘরে ঢুকে মুখোশধারী ৮/১০জন আমাদের সকলকে হাত-পা বেধে গ্রামে রক্ষিত গরু বিক্রির ১লাখ টাকা, ৩ভরি স্বর্ণ ও ৫টি মোবাইল নিয়ে যায়। ডাকাতরা আমার বৃদ্ধ বাবাকেও বেধে ফেলে।’’
দুবাই প্রবাসী ওমর আলীর স্ত্রী জয়নবের নেছা জানান,‘‘৭/৮জনের একদল মুখোশধারী ডাকাত আমার ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে নগদ ১০হাজার টাকা ও ২ভরি স্বর্ণ নিয়ে গেছে।’’
আহত ইয়ামিন মিয়ার ছেলে বাবুল মিয়া জানান,‘‘রাত আড়াইটার দিকে আমাদের দরজায় কে বা কারা ধাক্কা দেয়। আমার বাবা দরজা খুলে দিলে ডাকাতদল আমার বাবাকে মাথায় ও শরীরে বিভিন্ন জায়গায় কুপিয়ে আহত করেন। এসময় ঘরের মহিলাদের কাছ থেকে ২ভরি পরিমান স্বর্ণ অলংকার নিয়ে যায়।’’
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নবীনগর সার্কেল) চিত্ত রঞ্জন পাল জানান,‘‘চর-শিবপুর গ্রামে ডাকাতির ঘটনায় গ্রামবাসীর পিটুনিতে দুই জন ডাকাত নিহত হয়েছেন। এদর মধ্যে একজনের পরিচয় আমরা নিশ্চিত হয়েছি। অপরজনের পরিচয় জানার চেস্টা করছি। তিন গ্রামের লোকজন মিলে ডাকাতদের ধাওয়া করে ২জনকে আটক করেছে। ডাকাত নিহতের ঘটনায় ৪০০/৪৫০ জন অজ্ঞাতনামা আসামী করে পুলিশ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা ও বাবুল মিয়া বাদী হয়ে একটি ডাকাতি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।’’

মন্তব্য

মন্তব্য