চন্দনাইশে একই পরিবারের ৩ শিশু ডোবায় পড়ে মারা যায়

চন্দনাইশ প্রতিনিধি//উপজেলার পশ্চিম কানাইমাদারীতে একই পরিবারের ৩ শিশু পার্শ্ববর্তী ডোবায় পড়ে পানিতে ডুবে মারা যায়। ফলে এ সকল পরিবারে শোকের মাতাম বয়ে বেড়াচ্ছে। শত শত উৎসুক জনতা ছেলে ৩ টির লাশ এক নজর দেখার জন্য তাদের বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছে। গতকাল ২৪ ফেব্রæয়ারি দুপুরে পশ্চিম কানাইমাদারী শেখ চান্দের পাড়ার একই পরিবারের ৩ শিশু খেলতে খেলতে ঘরের পার্শ্ববর্তী ডোবায় পড়ে পানিতে ডুবে মারা যায়। হেলাল উদ্দীনের ছেলে সিফাত উদ্দীন আবির (৫), প্রবাসী কাউসার আলমের ছেলে তাহসিন আলম রিপতি (৪), মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে জয়নুল ইসলাম আরিয়ান সাড়ে ৩ বছর সবার অগোচরে খেলতে খেলতে পার্শ্ববর্তী ডোবায় পড়ে পানিতে ডুবে মারা যায়। দুপুর ১২ টায় ভাসমান অবস্থায় ৩ শিশুর লাশ উদ্ধার করে প্রথমে আনোয়ারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেন। চমেক হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার ৩ শিশুকে মৃত ঘোষণা করলে পরিবারের স্বজনদের আহাজারীতে হাসপাতালের বাতাস ভারি হয়ে উঠে। বিকেলে শিশুদের লাশ তাদের গ্রামের বাড়ীতে আসলে শত শত উৎসুক জনতা এক নজর শিশুদের লাশ দেখতে তাদের বাড়িতে ভিড় জমায়। এ সময় ৩ শিশুর স্বজন ও পিতা-মাতার আহাজারীতে প্রতিবেশীরাও কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। আজ ২৫ ফেব্রæয়ারী ওমান থেকে তাহসিন আলমের পিতা দেশে আসলে শিশুদের লাশ দাফন করা হবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা যায়।
একই পরিবারের ৩ শিশু মারা যাওয়ার কারণে পরিবারের সদস্যরা অনেকটা বাকরুদ্ধ। একই এলাকার যুবলীগ নেতা আনছারুল হক বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, দুপুরে ছেলে ৩ টিকে দেখতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে ডোবার পাশে তাদের সেন্ডেল পড়ে থাকতে দেখা যায়। পরে তাদের পার্শ্ববর্তী ডোবা থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। হেলালের দুই ছেলের মধ্যে আবির বড়, ছোট ছেলের বয়স দেড় বছর, প্রবাসী কাউছার আলমের একমাত্র ছেলে তাহসিন আলম মারা যাওয়ায় পরিবারের সদস্যরা অনেকটা বাকরুদ্ধ। অপরদিকে মৃত জয়নাল আবেদীনের আরো ২ মেয়ে ১ ছেলে রয়েছে বলে জানা যায়। (ছবি আছে)

মন্তব্য

মন্তব্য