বোরহানউদ্দিনে মির্জাকালু নৌ-পুলিশের বিরুদ্ধে জেলেদের কাছে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ

বোরহানউদ্দিন (ভোলা) প্রতিনিধি //
ভোলা বোরহানউদ্দিন মির্জাকালু নৌ-পুলিশের বিরুদ্ধে প্রতি নৌকা প্রতি ৫ হাজার টাকা হতে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত চাঁদা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় মেঘনার জেলেদের মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা গেছে। এতে নৌ-পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। অভিযুক্ত নৌ-পুলিশের বিরুদ্ধে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা গ্রহন করে কি না সেদিকে তাকিয়ে রয়েছে সাধারণ জেলেরা।
মেঘনা নদীর বাংলাবাজার আলিমুদ্দিন ঘাট এলাকার একাধিক জেলে অভিযোগ করে বলেন, মির্জাকালু ঘাটে দায়িত্বরত নৌ-পুলিশ এ.এস.আই মো: মনির হোসেন প্রতি নৌকা ধরে নৌকা প্রতি ৫ হাজার টাকা হতে ১০ হাজার টাকা করে একাধিক জেলের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়। মঙ্গলবার সকালে বাবুল মাঝি’র একটি নৌকা ধরেন এ নৌ-পুলিশ পরে তার কাছ থেকে হোসেন মাঝির ০১৯০৫০৫৬৯৮৫ এ নাম্বারে বিকাশের মাধ্যম ১০ হাজার টাকা নিয়ে জাল ও নৌকা ছেড়ে দেন। এছাড়া কবির মাঝি থেকে ৫ হাজার টাকা, জসিম মাঝি থেকে ৫ হাজার টাকা, বিল্লাল মাঝি থেকে ১০ হাজার টাকা, আক্তার মাঝি থেকে ১০ হাজার টাকা সহ একাধিক জেলের কাছ থেকে এভাবে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠে ওই এ.এস.আই মো: মনির হোসেন বিরুদ্ধে। তিনি হোসেন মাঝির মাধ্যমে এ টাকা গুলো হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।
এব্যাপারে মির্জাকালু নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত ইনচার্জ মমিনউদ্দিন জানান, আমি ছুটিতে ঢাকায় মিটিংয়ে আছি।
এব্যাপারে মির্জাকালু নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত মো: মনির হোসেন বলেন, আমি কিছু জেলেদের জাল ধরে এনেছি। তারাই মিথ্যা অভিযোগ দিতে পারেন বলে তিনি জানান।
এব্যাপারে বরিশাল নৌ-পুলিশের পুলিশ সুপার মো: কফিলউদ্দিন জানান, এ ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে প্রমাণ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য

মন্তব্য