কক্সবাজার সংদীয় ৪টি আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি ২৬ জন প্রার্থী

মোঃ জাহেদুল ইসলাম(জাহেদ)কক্সবাজার // একাদশ জাতীয় নির্বচনকে ঘিরে ৪ আসনে গটিত কক্সবাজার জেলার প্রতিটি আসনেই মনোনয়ন পেতে দৌড় ঝাপ শুরু করেছে আওয়ামীলগের নবীন প্রবীন একাদিক প্রার্থী।যারযার ভাশ্যে আবার শতবাগ সাফল্যের বক্ত্যব্য ও প্রকাশ করেন সবাই।যার দ্বরুন প্রতিনিয়ত বেড় চলছে আওয়ামী দলীয় কোন্দল। দলীয় সিন্দান্দের তোয়াক্কা নাকরে নিজ ইচ্ছাই শুরু করে দিয়েছে মনোনয়ন উৎসাহি প্রচার প্রচারনা। কক্সবাজারের সংসদীয় ৪টি আসনের ৩টিই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও ১টি জাতীয় পার্টির সাংসদ রয়েছেন।সরজমিনে দেখাযায় জেলার সর্বমোট ৪টি আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী এসকল সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন।

কক্সবাজার-১-(৫জন)

(চকরিয়া-পেকুয়া):চকরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন আহমদ সিআইপি, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রেজাউল করিম, জেলা আওয়ামীলীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম ও জেলা আওয়ামী লীগের মানবসম্পদবিষয়ক সম্পাদক ড. আশরাফুল ইসলাম সজিব।

কক্সবাজার-২-(৫জন)

(মহেশখালী-কুতুবদিয়া):বর্তমান সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. সিরাজুল মোস্তফা, ড. আনছারুল করিম, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা ওসমান গণি ও ইঞ্জি. ইসমত আরা ইসমো।

কক্সবাজার-৩(৭জন)

(সদর-রামু):বর্তমান সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী কানিজ ফাতেমা,কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষের চেয়ারম্যান লেঃকর্নেল (অবঃ)ফোরকান আহাম্মেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনিন সরওয়ার কাবেরী।রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোহেল সরওয়ার কাজল।মুলত যার প্রচারনায় এই আসনের রুপ পাল্টাই হচ্ছেন দীর্ঘ সময় ধরে তৃণমুল নেতাকর্মীদের পুর্ণ সমর্থনে মাঠ চষে বেড়ানো কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ নজিবুল ইসলাম। এছাড়াও এ আসনে মনোনয়ন প্রত্যশায় রয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ জয়।

কক্সবাজার-৪(৯জন)

(উখিয়া-টেকনাফ) : বর্তমান সাংসদ আব্দুর রহমান বদি, সাবেক সাংসদ ও টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী, সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশর, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রাজা শাহ আলম, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হামিদুল হক চৌধুরী, জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর, তাঁতী লীগের কেন্দ্রিয় কার্যকরী সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্তা, রাজাপালং ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী ও হলদিয়াপালং ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ আলম।

এবিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে, আওয়ামী লীগ গনতন্ত্রে বিশ্বাশি দল এ দলে নেতৃত্বের প্রতিযোগীতা আছে, এই সুবাদে দলিয বিদে সৃষ্টি করবে যা দ্বারা দলীয় মান ক্ষুন্ন হবে এমন বেয়াদবি সহ্য করা হবে না ।দলিয় সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত এ বাহিরে কেউ নৈতিক অবস্থানের চেষ্টা করলে সাংঘঠনিক ভাবে কটোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে যানান।

মন্তব্য

মন্তব্য