একজন নাজমুল হোসেন মুরাদ: শিক্ষকতায় পথপ্রর্দশক

হালিম সৈকত,কুমিল্লা // 
বাবা মায়ের পর ছাত্রের কাছে দ্বিতীয় পিতা মাতার মর্যাদায় আসীন হন তিনি হলেন শিক্ষক। শিক্ষক তাঁর মেধা দিয়ে শিক্ষার্থীদের মনে প্রচন্ড কৌতুহল জাগিয়ে তোলেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন: কৌতুহল জাগানো ও কৌতুহল নিবৃত্ত করা শিক্ষকের কাজ।
পেশায় তিনি একজন শিক্ষক। শিক্ষকতাকে যিনি ব্রত হিসেবে নিয়েছেন। মানুষ গড়ার কারিগর হয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন অবিরত। গড়ে তুলছেন আগামী দিনের জাতির কর্নধারদের। যারা বড় হয়ে দেশ পরিচালনা করবে। সেই শিশুদের গড়ে তুলছেন অত্যন্ত সুনিপুণভাবে।
হা বলছিলাম কুমিল্লার তিতাস উপজেলার মাছিমপুর গ্রামের আবদুর রশীদের বড় ছেলে মো. নাজমুল হোসেন মুরাদের কথা।
এলাকায় তার নানা পরিচয় থাকলেও তিনি সর্বাধিক পরিচিত শিক্ষক হিসেবে। তিনি মাছিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন বেশ কয়েক বছর নিষ্ঠার সাথে।
তিনি মাছিমপুর আর আর ইনস্টিটিউশন থেকে এসএসসি পাশ করেন। গৌরীপুর মুন্সী ফজলুর রহমান সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি ও ডিগ্রী শেষ করে পরে জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয় থেকে এম.এস.এস সম্পন্ন করেন কৃতিত্বের সাথে।
বর্তমানে বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারি শিক্ষক সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে তিনি এই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন। এছাড়া তিনি মাছিমপুর আর আর ইনস্টিটিউশনের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচিত বিদ্যোৎসাহী সদস্য। তিনি কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী স্বেচ্ছাসেবী ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ফ্রেন্ডস ক্লাবের অন্যতম উপদেষ্টা। প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক পল্লীরাজ আইডিয়াল স্কুলের। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি তিতাস উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক এবং আবদুর রশিদ সরকার বৃত্তি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।
নাজমুল হোসেন মুরাদ রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী হলেও তিনি ক্ষমতার দাপট দেখান না। তার আপন শালা সারওয়ার হোসেন বাবু কুমিল্লা উত্তর জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহŸায়ক ও উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। বর্তমানে তিনি তিতাস-হোমনা আসনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী।
তার আপন মামা তিতাস উপজেলা আ’লীগের সাবেক সদস্য সচিব ছিলেন এবং উপজেলা পরিষদের নির্বাচন করেছিলেন। তার আপন কাকা মোয়াজ্জেম হোসেন সরকার বিএনপির তিতাস উপজেলার সহ সভাপতি।
নাজমুল হোসেন মুরাদ একজন অমায়িক ভদ্রলোক। নিরহংকারী ব্যক্তি। সকলের সাথে মিলে মিশে চলাফেরা করতে তিনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। কোন প্রকার ঝুটঝামেলা তিনি অপছন্দ করেন।
তিনি এই বছর (২০১৮ সালে) তিতাস উপজেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক শিক্ষক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন।
তাঁর এই সাফল্যে ফ্রেন্ডস ক্লাবের সভাপতি, জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা কুমিল্লা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও তিতাস প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হালিম সৈকত, ফ্রেন্ডস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রবিউল আউয়াল রবি ও সদস্য জুয়েল রানা তাকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।
এছাড়া আরও অভিনন্দন জানিয়েছেন মাছিমপুর আর আর ইনস্টিটিউশনের প্রধান শিক্ষক মাহফুজুর রহমান চৌধুরী, বাতাকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আক্তার হোসেন, আশার আলো সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির সভাপতি হাসান মাহমুদ অপু ও কলাকান্দি বাজার উন্নয়ন সমবায় সমিতির চেয়ারম্যান মো. আলমগীর হোসেন, ফ্রেন্ডস ক্লাবের প্রবাসী শাখার সভাপতি মো. জালাল হোসেন (দ. কোরিয়া প্রবাসী) ও সাধারণ সম্পাদক গাজী মো. শাহজালাল ( সৌদি আরব প্রবাসী)।
অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক আলী আহম্মেদসহ সংগঠনের সর্বস্তরের নেতৃবৃন্দ।
নাজমুল হোসেন মুরাদ মহান আল্লাহর প্রতি শোকরিয়া প্রকাশ করে বলেন, তিতাস উপজেলার সিলেকশন বোর্ডকে ধন্যবাদ আমাকে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হিসেবে নির্বাচিত করায় এবং যারা আমাকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে অনুপ্রাণিত করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই।

মন্তব্য

মন্তব্য