উইকেট নিয়ে চিন্তায় তামিম

অনলাইন ডেস্ক :

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ভিসা হাতে পেয়ে ওই দিন গভীর রাতেই দুবাই উড়ে যান তামিম ইকবাল। ভোরে সেখানে পৌঁছে বুধবার বিকেলে দলের সঙ্গে দুবাই স্পোর্টস সিটিতে আইসিসির একাডেমিতে অনুশীলনও করেন। তামিমের মতে, এখন তাদের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া। ভালো খেলতে হলে অবশ্যই মধ্যপ্রাচ্যের প্রচণ্ড গরম ও আর্দ্রতার সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে। একই সঙ্গে দুবাই ও আবুধাবির উইকেট নিয়েও কিছুটা চিন্তিত তারকা এ ওপেনার। এখানকার উইকেট নাকি কখনও কখনও ভীষণ ব্যাটিংবান্ধব, আবার মাঝে মাঝে ব্যাটসম্যানদের বধ্যভূমিতেও পরিণত হয়। উইকেট নিয়ে চিন্তা থাকলেও তামিমের সব মনোযোগ এখন শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচটির ওপর। ১৫ সেপ্টেম্বর দুবাইয়ে এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে শ্রীলংকার মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

আঙুলে চোট পাওয়ায় দেশে ব্যাটিং অনুশীলন করতে পারেননি তামিম ইকবাল। দুবাই যাওয়ার দিন কেবল আধঘণ্টার মতো ব্যাটিং করেছিলেন শেরেবাংলা স্টেডিয়াম সংলগ্ন একাডেমি মাঠে। বুধবার অবশ্য দুবাইয়ে অনুশীলন করেছেন তিনি। ব্যাটিংয়ের সময় চোট পাওয়া আঙুলে খুব একটা সমস্যা হয়নি বলে জানা গেছে। অনুশীলনের ফাঁকে সংবাদ সম্মেলনে দুবাইয়ের উইকেট নিয়ে মন্তব্য করেছেন তামিম, ‘পাকিস্তান সুপার লীগে খেলার কারণে দুবাইয়ের উইকেট সম্পর্কে আমার সামান্য অভিজ্ঞতা আছে। এখানকার উইকেট সব সময় একই রকম থাকে না। মাঝে মধ্যে দেখা যায় উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য খুবই চমৎকার। আবার মাঝে মধ্যে পেসার ও স্পিনারদের সহায়তা করে। তাই আমরা কেমন উইকেট পাই সেটা দেখতে হবে। তবে উইকেট যেমনই হোক, দুবাইয়ে খেলাটা সব সময়ই উপভোগ্য। এখন আমরা ১৫ সেপ্টেম্বরের ম্যাচের দিকে তাকিয়ে আছি। আশা করছি বেশ ভালো খেলতে পারব।’

অধিনায়ক মাশরাফিও দেশ ছাড়ার আগে বলে গেছেন, শুরুটা ভালো করতে তারা মরিয়া। তাই শ্রীলংকার বিপক্ষে এত মনোযোগ। এর পেছনে অবশ্য আরও একটি কারণও আছে। লংকান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে যে বছরখানেক আগেও টাইগারদের দায়িত্বে ছিলেন। গত অক্টোবরে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে আচমকা পদত্যাগ এবং দায়িত্বে থাকার সময় স্বেচ্ছাচারী মনোভাবের কারণে হাথুরুর ওপর বাংলাদেশের অনেক ক্রিকেটারের ক্ষোভ আছে। তাই তার দলের বিপক্ষে খেলতে নামলে একটা বাড়তি অনুপ্রেরণা কাজ করে বলেও গুঞ্জন আছে। চলতি বছরের শুরুতে ঘরের মাঠে ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচে শ্রীলংকার বিপক্ষে জয়ের পর বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে প্রতিশোধের মনোভাবটা স্পষ্টই ফুটে উঠেছিল। এরপর গত মার্চে শ্রীলংকায় নিদাহাস ট্রফিতেও দু’দলের মাঝে একটা যুদ্ধ যুদ্ধ ভাব দেখা গিয়েছিল। এবারও কি তাহলে আরও একটি যুদ্ধ দেখা যাবে? দুবাইয়ে তামিমের সামনে এ বিষয়টিও তুলে ধরেছিল গণমাধ্যম। তামিম অবশ্য হাথুরুর বিপক্ষে ম্যাচকে প্রতিশোধ বলতে নারাজ, ‘আমরা তার (হাথুরু) সঙ্গে অসাধারণ কিছু মুহূর্ত কাটিয়েছি। চার-পাঁচ বছর একজন কোচ থাকলে সম্পর্কের উত্থান-পতন থাকবেই। কিন্তু কোচ হিসেবে তিনি আমাদের জন্য অসাধারণ কাজ করেছেন। কেউ তার কাছ থেকে এই কৃতিত্ব ছিনিয়ে নিতে পারবে না। অবশ্যই আমরা আমাদের সাবেক কোচকে হারাতে চাই। তবে খুব ভালো মানসিকতা নিয়ে, প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য নয়।’ এসব প্রতিশোধ নিয়ে না ভেবে ভালো খেলার প্রতি মনোযোগী হওয়ার জন্যও সতীর্থদের আহ্বান জানিয়েছেন তামিম। তামিমের সঙ্গে অবশ্য এখনও হাথুরুর সম্পর্ক চমৎকার। ওয়েস্ট ইন্ডিজে সেঞ্চুরির পর সাবেক এ শিষ্যকে মোবাইলে এসএমএস করে অভিনন্দনও জানিয়েছিলেন হাথুরু।

মন্তব্য

মন্তব্য