গাজীপুরের স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন, স্বামী পলাতক

সাইফুল আলম সুমন,নিজস্ব প্রতিবেদক:
গাজীপুরে স্বামীর হাতে স্ত্রী চম্পা আক্তার (২৪) খুন হয়েছে। নিহত চম্পা পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার বালির হাওলা গ্রামের নুরুল ইসলাম গাজীর মেয়ে। স্বামী রফিকুল ইসলাম, গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার নিজমাওনা এলাকার ইসমাইলের ছেলে। বুধবার দিবাগত মধ্য রাতে সদর উপজেলার রাজেন্দ্রপুর (পূর্ব নয়নপুর) এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত চম্পা ও তার স্বামী রফিকুল ইসলাম ওই এলাকার মনু মিয়ার বাড়ীতে ভাড়া থেকে স্থানীয় (এনএজেড) পোশাক কারখানায় সুইং আপরেটর হিসেবে কাজ করতো। সেখান থেকেই তাদের পরিচয় এবং বিয়ে হয়।

নিহতের ভাই মোহাম্মদ আলম গাজী জানান, ১০বছর আগে চম্পা ও রফিকের বিয়ে হয়। চম্পা হলো রফিকের দ্বিতীয় স্ত্রী, রফিকও চম্পার দ্বিতীয় স্বামী। তাদের এ সংসারে সাত বছরের তামিম নামের এক ছেলে রয়েছে। বনিবনা না হওয়ায় রফিকের প্রথম স্ত্রী স্বামীকে ছেড়ে বাপের বাড়ি চলে যায়। এরপর চম্পাকে বিয়ে করেন রফিক। বিয়ের বছর খানেক পর তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ দেখা দেয় এবং তারা আলাদাভাবে বসবাস শুরু করেন। ইতোমধ্যে রফিক তৃতীয় বিয়ে করে অন্যত্র বসবাস শুরু করেন। বিষয়টি চম্পা জানতেন না। রফিক মাঝে মধ্যে চম্পার ভাড়া বাড়িতে আসা-যাওয়া করেন। সম্প্রতি তৃতীয় বিয়ের ঘটনাটি জানাজানির পর চম্পার সঙ্গে রফিকের সম্পর্কের অবনতি দেখা দেয়। কয়েকমাস আগে চম্পা তার ছেলেসহ গাজীপুর সদর উপজেলার ভাওয়াল গড় ইউনিয়নের নয়নপুর এলাকায় মনু মিয়ার বাড়িতে ভাড়ায় উঠেন। চম্পা সেখানে থেকে এনএ জেড নামের পোশাক কারখানায় চাকুরি করেন। মঙ্গলবার চম্পার বাসা থেকে ছেলে তামিমকে শ্রীপুরে (নানার বাড়ী) রেখে আসেন তার বাবা। বুধবার সন্ধ্যার পর রফিক আবার চম্পার বাসায় যান। ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে না যাওয়ায় তাদের মধ্যে কথাকাটা কাটি হয়। এসময় চম্পার অপর ভাই স্থানীয় বাজারের কাঁচামাল ব্যবসায়ী জহিরুল গাজী তামিমের বিষয়ে জানতে চাইলে রফিক জানান তার ছেলে তামিমকে এক মাদ্রাসায় ভর্তি করে দিয়েছেন। সে সেখানেই থাকে। জহিরুল তার ব্যবসার কাজে বাজারে চলে যান। পরে রাত ২টার দিকে পাশের ভাড়াটিয়া চম্পার চিৎকার শুনতে পেয়ে এগিয়ে যান। এসময় রফিককে ঘর থেকে চলে যেতে দেখেন এবং ঘরে চম্পার রক্তাক্ত দেহ দেখতে পান। পরে বিষয়টি বাড়ির মালিক ও চম্পার স্বজনকে জানায় সে। খবর পেয়ে বিষয়টি হোতাপাড়া পুলিশ ক্যাম্পের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইফুল ইসলাম ঘটনাস্থলে যান।

স্থানীয় ভাওয়াল গড় ইউনিয়নের ৯নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য তরিকুল ইসলাম রিপন জানান, খবর পেয়ে রাত আড়াইটার সময় ঘটনাস্থলে যাই। তিনি বলেন, এটা ছিল উভয়ের দ্বিতীয় বিয়ে। তাদের মধ্যে বিয়ের কিছুদিন পর থেকে দাম্পত্য কলহ সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে একাধিকবার শালিস হয়েছে।

উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইফুল ইসলাম জানান, চম্পার দেহের একাধিক স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। স্বামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য

মন্তব্য