মাদক নির্মুলে র‌্যাবের নতুন ৫ ক্যাম্প স্থাপন   

মোঃজাহেদুল ইসলাম জাহেদ (কক্সবাজার)   
ইয়াবা পাচার প্রতিরোধের কক্সবাজারের সীমান্তবর্তী টেকনাফ উপজেলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এর আরো পাঁচটি নতুন ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। টেকনাফে আগেই র‌্যাবের একটি ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছিল। এ নিয়ে কক্সবাজার জেলায় র‌্যাবের ৭টি ক্যাম্পে স্থাপন করা হলো। নতুন পাঁচ ক্যাম্প স্থাপন উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার দুপুর ও বিকেলে কক্সবাজার শহর ও টেকনাফে র‌্যাবের বিশেষ টহল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘চলো যাই যুদ্ধে, মাদকের বিরুদ্ধে’ এ প্রতিপাদ্যে র‌্যাব-৭ এর আওতাধীন কক্সবাজার ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মেহেদি হাসানের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত যৌথ টহলে সাতটি ক্যাম্পের ২৪টি দল অংশ নেয়।
র‌্যাব সূত্র জানায়, দেশব্যাপী মাদক বিরোধী অভিযানে পর ও  ইয়াবা ব্যবসা বন্ধ না হওয়ায়, টেকনাফে র‌্যাবের ৫টি নতুন ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। এসব ক্যাম্পে মাদক চিহ্নিতকরণের জন্য থাকছে ডগ স্কোয়াড। টেকনাফে স্থাপিত ক্যাম্পের অবস্থান হলো, শাহপরীর দ্বীপ, সাবরাং, টেকনাফ সদর, বাহারছড়া ও হোয়াইক্যং। জানা গেছে, শাহপরীর দ্বীপের ক্যাম্পের অবস্থান হাজী বশির আহমদ উচ্চ বিদ্যালয়ে। এটি নাফ নদী ও বঙ্গোপসাগর বেষ্টিত এলাকা। মিয়ানমার থেকে নদী ও সাগর পথে বাংলাদেশে ইয়াবা আসে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা বিভিন্ন সময়ে বড় বড় চালান ও আটক করেছে। এখানে নাফ নদীর তীর সংলগ্ন এলাকায় বিজিবির একটি সীমান্ত চৌকি ও পুরাতন বাজার এলাকায় কোস্ট গার্ডের একটি ষ্টেশন রয়েছে। সাবরাংয়ের ক্যাম্পটি হচ্ছে সাবরাং ইউনিয়ন কমপ্লেক্সে। এর পূর্ব দিকে নাফ নদী, পশ্চিমে বঙ্গোপসাগর। নাফ নদী সংলগ্ন নয়াপাড়া ও বঙ্গোপসাগর সংলগ্ন ২টি বিজিবি’র চৌকি রয়েছে। তারপরও নয়াপাড়া, আছার বনিয়া, ঝিনা পাড়া, মগপাড়া, হারিয়া খালী, খুরের মুখ, বাহার ছড়া, আলীর ডেইলসহ বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবা আটকের ঘটনা রয়েছে। টেকনাফ সদরের ক্যাম্পটি হচ্ছে ইউনিয়ন কমপ্লেক্সে। এলাকায় বিজিবির একটি ব্যাটালিয়ন, সীমান্ত চৌকি ও কোস্ট গার্ডের ষ্টেশন রয়েছে। এ ইউনিয়নের নাফনদী হয়ে নাজির পাড়া, মৌলভী পাড়া, বরইতলী ও বঙ্গোপসাগর হয়ে খোনকার পাড়া, মহেষখালিয়া পাড়া, তুলাতলী, লম্বরী, লেংগুর বিল, মিঠাপানির ছড়া, হাবির ছড়া সহ বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে ইয়াবার বড় বড় চালান মিয়ানমার থেকে পাচার করে মওজুদ ও আটকের  অভিযোগ রয়েছে। একাধিক চালান আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতেও ধরা পড়েছিল। বাহারছড়ার ক্যাম্পটি ও হচ্ছে উপকূলীয় এলাকায়। সেখানে ও বিজিবির চৌকি, পুলিশ ফাঁড়ি ও কোস্ট গার্ডের সিজি ষ্টেশন রয়েছে। অপর ক্যাম্পটি হচ্ছে হোয়াইক্যং তেচ্চি ব্রিজ মোহাম্মদ হোসাইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে । এ ক্যাম্পের পাশে ২টি বিজিবির সীমান্ত ফাঁড়ি ও পুলিশের একটি ফাঁড়ি রয়েছে।
র‌্যাব-৭ কক্সবাজার সিপিসি-২ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর মেহেদি হাসান জানান, র‌্যাবের চলমান মাদক বিরোধী অভিযানের অংশ হিসাবে টেকনাফ অঞ্চলে নতুন পাঁচটি ক্যাম্প চালু করা হয়েছে। এই অঞ্চলে বর্তমানে সাতটি ক্যাম্প ধারা মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযান অব্যাহত রয়েছে। দেশব্যাপী র‌্যাবের চলো যাই যুদ্ধে, মাদকের বিরুদ্ধে শীর্ষক অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। কক্সবাজারকে মাদকমুক্ত করার লক্ষ্যে টেকনাফে র‌্যাবের নতুন পাঁচটি ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। মঙ্গলবার ৭টি ক্যাম্পের ২৪টি দল বিশেষ টহলে অংশগ্রহণ করে। কক্সবাজার শহরের লিংক রোড় থেকে শুরু হয়ে প্রথমে শহর প্রদক্ষিণ করে মেরিন ড্রাইভ সড়ক হয়ে যাত্রা করে বিকাল ৫টায় টেকনাফে শেষ হয়।

মন্তব্য

মন্তব্য